বালাগঞ্জে নর্থইস্ট বালাগঞ্জ কলেজে পাঠদান শুরু

এসএম হেলাল, বালাগঞ্জঃ বালাগঞ্জে উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের সপ্তম প্রতিষ্ঠান হিসেবে নর্থইস্ট বালাগঞ্জের পাঠদান শুরু হয়েছে। প্রবাসী উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত এ কলেজের প্রথমদিনের পাঠদান শুরু অনুষ্ঠানে কলেজের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা, শিক্ষক, অভিভাবক এবং শিক্ষার্থীদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা লক্ষ্য করা গেছে। উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষার নতুন বিদ্যাপীঠ নর্থইস্ট বালাগঞ্জ কলেজের পাঠদান অনুষ্ঠানে সংশ্লিষ্টরা বিশেষ করে বালাগঞ্জে শিক্ষাক্ষেত্রে নতুন বিপ্লব গড়ে তোলার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন।

গত শনিবার সকাল সাড়ে ১১টার সময় কলেজ মিলনায়তনে প্রথম ব্যাচের ওরিয়েন্টশন ক্লাসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. জিল্লুর রহমান শোয়েব। প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী প্রবাসী আতাউর রহমান শিপু।
কলেজের প্রভাষক মো. জুয়েল মিয়ার পরিচালনায় ওরিয়েন্টশন ক্লাসের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কলেজের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য হাজী মো. সাইস্তা মিয়া ও মো. আব্দুল জলিল, কলেজ বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি আমির হোসেন নুরু, সহ সভাপতি মো. আব্দুল কাদির, সমাজসেবী মনিরুল ইসলাম মহরম মেম্বার, নোমান আহমদ, গহরপুর রাইটার্স ক্লাবের সভাপতি সাংবাদিক মো. জিল্লুর রহমান জিলু। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন প্রভাষক নাজিম উদ্দিন, প্রভাষক প্রনজিৎ পাল, প্রভাষক রুহুল আমীন, প্রভাষক জলি বেগম, প্রভাষক হাজেরা বেগম, কলেজ স্টাফদের পক্ষ থেকে রীমা বেগম, শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে নাবিল হায়দার চৌধুরী।
প্রসঙ্গত, বালাগঞ্জ উপজেলার সিলেট সুলতানপুর সড়কের গহরপুরের নশিওরপুর আলাপুর এলাকায় এক একর নিজস্ব ভূমিতে প্রবাসী উদ্যোগে নর্থইস্ট বালাগঞ্জ কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। গত ২০১৩ সালের ৬জানুয়ারী সাবেক সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহ্ আজিজুর রহমান আনুষ্ঠানিকভাবে এ কলেজের ভিত্তিস্থাপন করেন। এরপর কলেজের অবকাঠামো নির্মাণের অংশ হিসেবে সিলেট ৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী চলতি বছর ১৩ ফেব্র“য়ারী প্রায় ৮০লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত ভবনের ভিত্তিস্থাপন শেষে গত ২০জুন ভবনটি শুভ উদ্বোধন করেন। একইদিন কলেজের প্রথম ব্যাচের শিক্ষার্থীদের স্বাগত জানিয়ে নবীনবরণ অনুষ্ঠিত হয়। কলেজের প্রথম ব্যাচে ইতোমধ্যে ৭০জন শিক্ষার্থী ভর্তি হয়েছে বলে জানা গেছে।
এ বিষয়ে আলাপকালে কলেজের উদ্যোক্তা ও প্রতিষ্ঠাতাদের অন্যতম প্রবাসী মো. আব্দুল মতিন, মো. ইমরান আলী ও একরাম আহমদ ইলিয়াস জানান, কলেজের ভূমি এবং অবকাঠামো নির্মাণসহ বিভিন্ন বিষয়ে ইতোমধ্যে কয়েক কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে। প্রবাসীদের মূল উদ্দেশ্য জন্মভূমি বাংলাদেশের সুবিধাবঞ্চিত, পিছিয়ে পড়া ভবিষ্যত প্রজন্ম যেন শিক্ষার আলোয় আলোকিত হয়ে উঠতে পারে। এক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের উন্নত পড়ালেখার স্বার্থে প্রবাসীদের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করা হবে।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close