তাহিরপুর সীমান্তে চলছে চোর-পুলিশ খেলা:৫৪টনের মধ্যে ১৩টন কয়লা জব্দ

কামাল হোসেন, তাহিরপুর(সুনামগঞ্জ)
সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর সীমান্তে চোরাই কয়লা ও চোরাচালানীদের আটক করা নিয়ে চলছে চোর-পুলিশ খেলা। প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নজরদারীতে ক্ষনিকে জন্য সীমান্তের চোরাচালানীরা সাময়িক অসুবিধায় পড়লেও স্থানীয় বিজিবি ক্যাম্পের প্রত্যক্ষ মদদে রাতে আধাঁরে কয়লা পাচাঁর করা হচ্ছে। স্থানীয়রা জানায়,গতকাল সোমবার বড়ছড়া-টেকেরঘাট সীমান্ত দিয়ে দূরবীনশাহ,মাফিক মিয়া,সোনালী মিয়া,আইনাল হক,সাইকুল মিয়া,
আতা মিয়ার নেতৃত্বে ১৫টন,রাজাই ও চানপুর সীমান্ত দিয়ে সম্রাট মিয়া,জম্মত আলী,আবু বক্কর,বাচ্চু মিয়া,আবুল মিয়ার নেতৃত্বে ২০টনসহ মোট শতাধিক টন কয়লা পাচাঁর করা হয়। এরপর সেই কয়লা যাদুকাটা নদীর দুইতীরে ও সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রিয়াজ উদ্দিন খন্দাকার লিটনের বড়ছড়া শুল্কস্টেশনে অবস্থিত ডিপুতে মজুদ করা হয়। এখবর এলাকায় জানাজানি হওয়ার পর বিজিবি ও চোরাচালানীদের মধ্যে শুরু হয় চোর-পুলিশ খেলা। অবৈধ কয়লাগুলো আটক করা নিয়ে শুরু হয় তালবাহানা। অবশেষে বড়ছড়া ক্যাম্পে বিজিবি সদস্যরা লিটন খন্দকারের ডিপুতে থাকা ৫৪টন চোরাই কয়লা দুইদিন যাবত পাহারা দিয়ে কোন উপায় খোঁজে না পেয়ে সুনামগঞ্জ ৮ বিজিবি অধিনায়নের নির্দেশে যাচাই ক্রমে চোরাই কয়লা প্রমানিত হওয়ায় ১৩টন কয়লা জব্দ করে। আর বাকী কয়লা উৎকোচের বিনিময়ে ছেড়ে দেওয়া হয়। চোরাই কয়লা আটকের বিষয়টি অস্বীকার করে বড়ছড়া বিজিবি কোম্পানী কমান্ডার আব্দুর রউফ বলেন-আমরা কোন কয়লা আটক করিনি,লিটন খন্দকারের উপর মহলের লোক আছে,তাই বৈধ কাগজপত্র দেখিয়ে কয়লা ছাড়িয়ে নিয়ে গেছে। খোঁজ নিয়ে জানাযায়,মামলা জনিত কারণে গত ৭ মাস যাবত ভারত থেকে কয়লা আমাদানী-রপ্তানি বন্ধ রয়েছে। এজন্য উপজেলার ৩টি শুল্কস্টেশন বড়ছড়া,চাঁরাগাঁও,বীরেন্দ্রনগর দীর্ঘদিন যাবত কয়লা শূন্য রয়েছে। এসুযোগকে কাজে লাগিয়ে স্থানীয় বিজিবি ক্যাম্পের সহযোগীতায় চোরাচালানীরা লাউড়েরগড়,চানপুর,বড়ছড়া,বালিয়াঘাট,বীরেন্দ্র নগর ও চাঁরাগাঁও সীমান্ত দিয়ে অপেন কয়লা চোরাচালান শুরু হয়। তার পাশাপাশি ভারত থেকে অবাধে আসতে থাকে মদ,গাজা,হেরুইন,অস্ত্র,ঘোড়া,নাসির উদ্দিন বিড়িসহ নানান প্রকার মাদকদ্রব্য। এসবের বিনিময়ে বাংলাদেশ থেকে যাচ্ছে মাছ,মাংস,মাক-সবজি,ভৈজ্যতেল,
সিরামিক ও মোবাইল কার্ডসহ বিভিন্ন প্রকার দেশীয় পন্য। ৫৪টন চোরাই কয়রার মধ্যে ১৩টন চোরাই কয়লা আটকের সত্যতা নিশ্চিত করে সুনামগঞ্জ ৮ ব্যাটালিয়নের বিজিবি অধিনায়ক গোলাম মহিউদ্দিন বলেন-সীমান্ত এলাকায় চোরাচালান হবে এটাই স্বাভাবিক,তবে ১৩টন চোরাই কয়লা আটক করাসহ চোরাচালান বন্ধের জন্য কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close