বাংলাদেশ সোসাইটির উৎসবমুখর নির্বাচন : কুনু- রহিম প্যানেলের নিরঙ্কুশ বিজয়

নির্বাচনের বেসরকারি ফলাফল ঘোষণা করছেন নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার নূরুল হক। ছবি- এনা।

নির্বাচনের বেসরকারি ফলাফল ঘোষণা করছেন নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার নূরুল হক। ছবি- এনা।

নিউইয়র্ক থেকে এনা: সকল- জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে উৎসবমুখর পরিবেশে প্রবাসে বাংলাদেশীদের সর্ববহৎ সংগঠন বাংলাদেশ সোসাইটির নির্বাচনে কুনু- রহিম প্যানেল নিরঙ্কুশ বিজয় লাভ করেছে। গত ২৬ অক্টোবর দিন ব্যাপী অনুষ্ঠিত এ নির্বাচনে আজমল হোসেন কুনু সভাপতি এবং আব্দুর রহিম হাওলাদার পুনরায় সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন। কুইন্স এবং ব্রুকলীনের দুটো ভোট কেন্দ্রে সারা দিন ভোট গ্রহণ শেষে গুলশাল টেরেসে গভীর রাতে নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার নূরুল হক বেসরকারিভাবে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করেন। এ সময় নির্বাচন কমিশনের সদস্য মোহাম্মদ আজিজ, মোহাম্মদ এ হাকিম, মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, আজমল আলী, উভয় প্যানেলের প্রার্থী এবং সমর্থকরা উপস্থিত ছিলেন।
কুইন্সের গুলশান টেরেস এবং ব্রুকলীনের পিএস ২১৪ এর অডিটোরিয়ামে সকাল ৯টা থেকেই ভোট গ্রহণ শুরু হয়। সকাল থেকে উভয় প্যানেলের প্রার্থী এবং সমর্থকরা বাংলাদেশী স্টাইলে ভোটারদের গাড়ি দিয়ে বাড়ি থেকে নিয়ে আসেন। আবহাওয়া মোটামুটি ভাল থাকায় ভোটাররা উৎসাহ- উদ্দীপনা নিয়ে ভোট কেন্দ্রে ভোট দিতে আসেন। দুটো কেন্দ্রেই ভোটারদের লাইন ধরে ভোট দিতে দেখা যায়। তবে সকাল বেলায় উভয় কেন্দ্রেই ভোটারদের উপস্থিতি ছিলো কম। শেষ বিকেলে বিশেষ করে দুপুর থেকে দুটো কেন্দ্রের ভোটারদের লাইন দেখা যায়। তবে ব্রুকলীন কেন্দ্রের তুলনায় কুইন্সের কেন্দ্রে ভোটারদের উপস্থিতি ছিলো বেশি। দুটো কেন্দ্রেই সারা দিনব্যাপী ভোট কেন্দ্রের সামনে প্রার্থীদের ভোট প্রার্থনা ছিলো লক্ষ্যণীয়। যারাই ভোট দিতে এসেছেন তাদের হাতে ধরিয়ে দিয়েছেন তাদের লিফলেট। লিফলেট দেয়ার আগে বাড়িয়ে দিয়েছেন হাত। লিফলেট দিয়েই বলেছেন আমার দিকে একটু খেয়াল রাখেন। ভোর থেকে উভায় প্যানেলের প্রার্থী এবং সমর্থকরা দুটো ভোট কেন্দ্রের সামনেই চেয়ারটেবিল নিয়ে বসে পড়েছেন। সাহায্য

নির্বাচনে বিজয়ী সভাপতি আজমল হোসেন কুনু, মাঝে সাবেক সভাপতি এম আজিজ ও বিজয়ী সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম হাওলাদার।

নির্বাচনে বিজয়ী সভাপতি আজমল হোসেন কুনু, মাঝে সাবেক সভাপতি এম আজিজ ও বিজয়ী সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম হাওলাদার।

করেছেন ভোটারদের। সেই সাথে প্যানেল এবং প্রার্থীদের পোস্টার দিয়ে সাজানো হয়েছে ভোট কেন্দ্রের সামনে এবং আশেপাশের স্ট্রিট।
এবারের নির্বাচনে লাইফ মেম্বারসহ ভোটার সংখ্যা ছিলো ৪০৩৭ জন। এর মধ্যে লাইফ মেম্বার রয়েছে ৩০৭ জন। ৪০৩৭ জন ভোটারের মধ্যে ২৬৫৯ ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। কুইন্স কেন্দ্রে ব্যবহার করা হয়েছে ১৫টি এবং ব্রুকলীন কেন্দ্রে ৪ মেশিন ব্যবহার করা হয়েছে। বেসরকারিভাবে ঘোষিত ফলাফলে সভাপতি পদে আজমল হোসেন কুনু ১৩৪২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। অন্যদিকে এ পদে বর্তমান সভাপতি কামাল আহমেদ ১২৬৭ ভোট পেয়ে পরাজিত হয়েছেন। সাধারণ সম্পাদক পদে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম হাওলাদার ১৩৫৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। এ পদে জে মোল্লা সানি পরাজিত হয়েছেন ১২১৩ ভোট পেয়ে। সিনিয়র সহ সভাপতি পদে জয়লাভ করেছেন মহিউদ্দিন দেওয়ান, সহ সভাপতি জয়লাভ করেছেন ফারুক হোসেন মজুমদার। সহ সাধারণ সম্পাদক পদে জয় পেয়েছেন ওসমান চৌধুরী, কোষাধ্যক্ষ পদে মোহাম্মদ আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক পদে সৈয়দ এম কে জামান, কালচারাল সেক্রেটারি পদে মনিকা রায়, প্রচার সম্পাদক পদে মাহফুজুল ভুইয়া, সমাজ কল্যাণ সম্পাদক পদে কাজী তোফায়েল ইসলাম, সাহিত্য সম্পাদক পদে ওয়াহিদ কাজী এলিন, ক্রীড়া সম্পাদকে সৈয়দ এনায়েত আলী, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাতক পদে ফারহানা চৌধুরী জয়লাভ করেছেন। অন্যদিকে কার্যকরী সদস্য পদে রফিকুল ইসলাম ডালিম, নাদির এ আইয়ুব, মোহাম্মদ সিরাজুল হক জামাল, নাসির উদ্দিন আহমেদ, আবুল কাশেম চৌধুরী জয়লাভ করেছেন। সদস্য পদে সৈয়দ ইলিয়াস খসরু এবং শাইখুল ইসলাম সমান ভোট পাওয়ায় ফলাফল স্থগিত রাখা হয়েছে।
অন্যদিকে নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ এনে কামাল- সানি পরিষদের পক্ষ থেকে ফলাফল পুনগণনা দাবি জানানো হয়েছে এবং তার এ ফলাফল প্রত্যাক্ষণ করেছেন। এ ব্যাপারে নির্বাচন কমিশনকে চিঠি দেয়া হয়েছে।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close