ভূমির প্রকৃত মুল্য পেতে প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ উপনেতার হস্তক্ষেপ কামনা

Hasinaসুরমা টাইমস রিপোর্টঃ হাইকোর্টে রিট আবেদনের পর প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ উপনেতার কাছে স্বারকলিপি পেশ করেছে সিলেট সদরের হাজিরাই মৌজা ও গোলাপগঞ্জ উপজেলার আমধরপুর ও হাতিমনগর মৌজার ভুমি মালিকরা। সিলেটের জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে তারা এ স্বারকলিপি পেশ করেছেন। ̄স্বারকলিপিতে তারা সিলেটের নবগঠিত ১৭ পদাতিক ডিভিশনের জন্য অধিগ্রহনকৃত ভুমির প্রকৃত মুল্য নির্ধারনে প্রয়োজনী ব্যবস্তা গ্রহনের দাবি জানিয়েছেন।
একই সঙ্গে তারা ত্রিপক্ষীয় কমিটি গঠনের দাবি জানিয়েছেন। ̄স্বারকলিপিতে তারা দাবি করেন, জেএল কেইছ নং-১/২০১৩-১৪ইং নবগঠিত ১৭ পদাতিক ডিভিশনের জন্য অধিগ্রহনকৃত ভুমির যথাযথ বাজারমুল্যের ভিত্তিতে ও বর্তমান সার্থ সংশ্লি ষ্ট মালিকদের ক্ষতিপুরন প্রদানের নির্দেশনা চেয়ে ১০ই জুন হাইকোর্টে রিট করা হয়। যার নং-৫৬৮৯/২০১৪। রিটের প্রেক্ষিতে হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ কারন দর্শানো সহ ওই ভুমির কার্যক্রম তিন মাসের জন্য বিগত করেন এবং ভুমি সচিবকে প্রধানের মাধ্যমে ত্রিপক্ষীয় কমিটি গঠন করে বর্তমান শেধনী ও বাজারমুল্য নির্ধারনপূর্বক দুই মাসের মধ্যেে ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপুরণের টাকা প্রদান সাপেক্ষ ভুমি হস্তান্তরের নির্দেশণা প্রদান করেন। ̄
স্বারকলিপিতে তারা জানান, রিট পিটিশন নং ৫৬৮৯/২০১৪ চলমান অবস্তায় বিগত ২৩ শে জুন ভুমির ক্ষতিপুরনের চেক প্রদান করা হয়েছে।
কিন্তু দেখা গেছে, প্রকৃত মালিকরা ক্ষতিপুরনের চেক পাননি। চার জন ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে দুইজন অন্যের জমি দাবিদার হয়ে চেক গ্রহন করেন। আর এতে করে ভুমির প্রকৃত মালিকদের মধ্যে বিশৃংখলা সৃষ্টি হয়েছে।
স্বারকলিপিতে তারা জমির প্রকৃত মুল্য নির্ধারনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন এলাকার মানুষ।
̄স্বারকলিপিতে সাক্ষর করেন, মো. আব্দুল মান্নান, সৈয়দ হাছিন আহমদ মিন্টু, সিদ্দিকুর রহমান শায়েস্তা, কাওছার হোসেন শাহীন, নেহার রঞ্জন দাস, এসএম ইকবাল হোসেন, খলিলুর রহমান চৌধুরী সুজন, মনোয়ার হোসেন রাজিব, জহিরুর কবির চৌধুরী, ফয়ছল আহমদ, প্রবাসী কমিউনিটি নেতা হাফিজ মজির উদ্দিন, এমদাদুর রহমান প্রমুখ।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close