তাহিরপুরে প্রভাবশালী কতৃক মসজিদের জমি দখলের চেষ্টা’

 সেটেলমেন্ট অফিসার ও মসজিদের সভাপতির বিরোদ্ধে আদালতে মামলা

প্রতিনিধি,তাহিরপুর(সুনামগঞ্জ)
সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর উপজেলায় জমির কোন দলীলপত্র ও কাগজপত্র ছাড়াই সীমান্ত সংলগ্ন উত্তর বড়দল ইউনিয়নের শিমুলতলা গ্রামের শিমুলতলা জামে মসজিদের প্রভাবশালী সাবেক মুতাওয়াল্লির(সভাপতির) মৃত মোঃ রিয়াজ উদ্দিনের পুত্র চন্দ্রপুর জামে মসজিদের র্বতমান মুতাওয়াল্লি(সভাপতি) র্কতৃক জোরপূর্বক ও বেআইনিভাবে মসজিদের জমি দখল করার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। যারফলে ওই এলাকায় দই পক্ষের মধ্যেই বিরাজ করছে তুমুল উত্তেজনা। এ ঘটনায় এলাকাবাসী ও প্রভাবশালী সাবেক সভাপতির পুত্রের মধ্যে ঘটে যেতে পারে যে কোন সময় রক্তক্ষয়ী সংর্ঘষ। এলাকাবাসী ও মামলা সূত্রে জানাযায়, ১৯৮০ সালে তাহিরপুর উপজেলার উত্তর বড়দল ইউনিয়নের চন্দ্রপুর গ্রামের মৃত ওয়াহেদ আলীর পুত্র মোঃ রিয়াজ উদ্দিন(বর্তমানে মৃত) শিমুলতলা জামে মসজিদের মুতাওয়াল্লি (সভাপতি) থাকা অবস্থা শিমুলতলা জামে মসজিদের আয় উন্নতির জন্য একই গ্রামের মৃত আব্দুল মতলেবের পুত্র মকবুল হোসেন ও তাহ স্ত্রী সেরাজান বিবির কাছ থেকে শিমূলতলা জামে মসজিদ ফান্ডের থেকে টাকা নিয়ে নগদ ২ হাজার(২০০০) টাকায়, তাহিরপুর উপজেলার মালসীগুপ মৌজার, জে, এল নং-১৩০ ও ১৬২ নং এস, এ খতিয়ানের ২২১২ (দুই হাজার দুইশত বার), ২২১৩ (দুই হাজার দুইশত তের) ও ২২১৪ (দুই হাজার দুইশত চৌদ্দ) নং দাগে মোট ০.৩১ শতক আমন ভূমি(জমি) ১৩৮৭ বাংলার ৬ই আশ্চিন, ২৩/০৯/১৯৮০ ইংরেজীতে ১৭০০৩ নং দলিলে সাব কাবলা (দলিল) মূলে উক্ত ভূমির মালিক মকবুল হোসেন শিমূলতলা জামে মসজিদের নিকট বিক্রয় করিয়া স্বত্ব দখল ত্যাগী হন। তৎপর বাদী শিমুলতলা মসজিদ তাহাদের ক্রয়কৃত ভূমি নিস্কন্টক করার জন্য উক্ত ভূমির মধ্যে মৃত আব্দুল মতলেবের স্ত্রী সেরাজান বিবির অংশের ০.০৪ একর ভূমি গত ১৩/০২/১৯৮১ ইং তারিখের ২৮৯৮ নং রেজিষ্টারী দলিল মূলে সেরাজান ববিরি নিকট হইতে খরিদ করিয়া শিমুলতলা জামে মসজিদ মালিক হয়। মামলা সূত্রে আরও জানাযায়, উপরোক্ত ৩১ একর ভূমি(আমন জমি) করিদকৃত মালিক শিমুলতলা জামে মসজিদ প্রায় ৩৪ বছর যাবৎ উক্ত ভূমিতে আমন ফসল ফলাইয়া শান্তির্পূণভাবে ভোগ দখল করে আসছে। এমতাবস্থায় চলতি আর,এস জারিপে উক্ত ভূমি জরিপী কর্মচারীগন শিমুলতলা মসজিদকে দখলকার পাইয়া সঠিকভাবে শিমুলতলা জামে মসজিদের নামে মাঠ র্পচা প্রস্তুত ক্রমে গত ১১/০৪/২০০৫ ইংরেজী তারিখে তাহা শিমুলতলা মসজিদের নামে তসদিক করেন। এর পর সাবেক মুতাওয়াল্লি মোঃ রিয়াজ উদ্দিন গত প্রায় ১৫ বছর আগে মারা যান। কিন্তু গত এক বছর আগে চন্দ্রপুর গ্রামে চদ্রপুর মামে মসজিদ নামে একটি নতুন মসজিদ স্থাপন হয়। এতে শিমুলতলা মসজিদের সাবেক মুতাওয়াল্লি(সভাপতি) মৃত মোঃ রিয়াজ উদ্দিনের পুত্র খাছ মিয়া মুতাওয়াল্লি(সভাপতির) দায়ীত্ব পাওয়ার পর থেকে চন্দ্রপুর গ্রামের একটি প্রভাবশালী কুচক্রি মহলের ইন্দনে শিমুলতলা মসজিদের ক্রয়কৃত ৩১ একর ভূমি চন্দ্রপুর মসজিদের দাবি করতে থাকে। এবং কোন রকম দলিলপত্র ছাড়াই তা জোরর্পূবকভাবে ভোগ দখলের জন্য বেশ কয়েকবার ে চষ্টা করে। তাতে শিমূলতলা গ্রামবাসী বাধাঁ দিলে চন্দ্রপুর মসজিদের সভাপতি খাছ মিয়া তাহিরপুর উপজেলা সেটেলমেনট অফিসার এ,কে,এম আইনুল কবির বরাবরে ১৯৫৫ সনের র্পূববঙ্গীয় প্রজাস্বত্ব আইনের নিয়মানুযায়ী ৩১ ধারা মতে ২৪২২/১৪ একটি আপীল মামলা দায়ের করে। যাহতে লেখা হয় ৮৯ নং- মালশীগুপ মৌজার আপত্তি নং-১৭৭৭, নিস্পত্তি তাং-১১/১২/১৩, জিপি ৯৫, সাবেক দাগ ২২১৪,২২১২,২২১৩ ও হাল দাগ ৪৮০৯,৪৮১০,৪৮১১ এবং উক্ত তপশীল র্বণিত ভূমি আমার(আপীল কারির) কবলা মুলে মূলে মালিক ও দখলদার কিন্তু ৩০ ধারা মামলায় উক্ত ভূমির দলিলপত্র শিমুলতলা জামে মসজিদের প্রমানিত হওয়ায় উক্ত ৩০ ধার মামলার রায়া আমার(চন্দ্রপুর মসজিদের) বিপক্ষে হয়(শিমুলতলা জামে মসজিদের পক্ষে রায় হয়)। কিন্তু চন্দ্রপুর জামে মসজিদের মুতাওয়াল্লিখাছ মিয়া উক্ত ৩০ ধার মামলার রায়ের বিরোদ্ধে ও রের্কড সংশোধন করার জন্য ৩১ ধারা আপীল মামলা দায়ের করেন। উক্ত মামলাটি ২৮/০১/১৪ইং ও ২৭/০২/১৪ ইং তারিখে শোনানীর দিন র্ধায করা হইলে দু পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করলে সেটেলমেন্ট অফিসার এ,কে,এম আইনুল কবির ও চন্দ্রপুর মসজিদের মুতাওয়াল্লি(সভাপতি) খাছ মিয়ার যোগসাযোসে অতি গোপনে ও মোটা অংকের উৎকুছে বিনিময়ে গত ০৮/০৫/২০১৪ ইং তারিখে মামলার শোননীর দিন র্দাযকরেন। এবং ওই চন্দ্রপুর মসজিদের উক্ত ভূমির কোন রকম দলিরপ্রত্র ও প্রমান ছাড়াই শিমূলতলা জামে মসজিদকে না জানিয়ে উত্তর চন্দ্রপুর জামে মসজিদের পক্ষে ৩১ ধারা মামলার রায় প্রদান করেন। কিন্তুশিমুলতলা জামে মসজিদের র্বতমান মুতাওয়াল্লি(সভাপতি)রায়ের কপি সিলেট জোনাল অফিস থেকে উত্তোলন করে জানার পর উক্ত রায়ের বিরোদ্ধে শিমুলতলা জামে মসজিদের র্বতমান মুতাওয়াল্লি(সভাপতি) আব্দুছ ছবুর তালুকদার গত ০৬/১০/২০১৫ ইং তারিখে উত্তর চন্দ্রপুর জামে মসজিদের মুতাওয়াল্লি(সভাপতি) খাছ মিয়া ও তাহিরপুর সেটেলমেন্ট অফিসার(র্বতমানে বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা সেটেলমেন্ট অফিসার) এ,কে,এম আইনুল কবিরের বিরোদ্ধে সুনামগঞ্জ মাননীয় সহকারী জজ আদালত, তাহিরপুর সুনামগঞ্জে একটি স্বত্ব মোকাদ্দমা মামলা দায়ের করেন। যাহার নং-৩৫/২০১৫ ইং

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close