ওসমানী বিমানবন্দরে রিফুয়েলিং চালু : ২৯ মার্চ আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু

Osmani International Airportসুরমা টাইমস ডেস্কঃ দীর্ঘ প্রতিক্ষা, দূর্ভোগ আর অনেক আন্দোলনের পর অবশেষে চালু হতে যাচ্ছে ওসমানী বিমাবন্দরের রিফুয়েলিং স্টেশন। মঙ্গলবার দুপুরে দুটি বিমানে তেল প্রদানের মাধ্যমে পরীক্ষামূলকভাবে রিফুয়েলিং স্টেশনটি চালু হয়। ২৯ মার্চ আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করবে এটি। এতে করে পূর্ণাঙ্গ আন্তর্জাতিক রুপ পাবে সিলেট এমএজি ওসমানী বিমানবন্দর।
মঙ্গলবার দুপুর ১ টা ৪৫ মিনিট। সিলেটের জন্য একটি ঐতিহাসিক মূহুর্ত। সিলেটবাসীর জন্য একটি স্বপ্নপূরণের ক্ষণ। ওসমানী বিমানবন্দরের নবনির্মিত রিফুয়েলিং স্টেশন থেকে ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের একটি বিমানে তেল প্রদান করা হয়। এর মাধ্যমে পরীক্ষামূলকভাবে যাত্রা হয় সিলেটবাসীর স্বপ্নের রিফুয়েলিং স্টেশনের। মঙ্গলবার ইউএসবাংলার বিমানে ৮০০ লিটার এবং এরপর নভোএয়ারের একটি বিমানে ৭৪০ লিটার তেল রিফুয়েলিং স্টেশন থেকে প্রদান করা হয়।
এতোদিন ধরে কেবল নামেই আন্তজার্তিক ছিলো ওসমানী বিমানবন্দর। অথচ এই বিমানবন্দর থেকে ছিলো না সরাসরি কোনো আন্তর্জাতিক ফ্লাইট। তেল নেয়ার সুযোগ না থাকায় ওসমানীতে অবতরণ করতো বিদেশী এয়ারলাইন্সগুলো। এতে প্রবাসী অধ্যুষিত সিলেটবাসীদের পোহাতে হয়েছে দীর্ঘ দূর্ভোগ। সরাসরি নিজেদের গন্তব্যে না যেতে পেরে অতিরিক্ত অর্থ ও সময় ব্যয় করতে হয়েছে সিলেটের বিদেশগামী যাত্রীদের।
এর ফলে ওসমানী বিমানবন্দর থেকে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালুর দাবি দীর্ঘদিনের। এই দাবিতে আন্দোলনও হয়েছে অনেক। সিলেটবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের উদ্যোগে ২০১২ সালে বিমানের কনস্ট্রাকসন এভিয়েশন রিফুয়েলিং ফেসিলিটিজ নামে সিলেটে রিফুয়েলিং স্টেশন নির্মানের কাজ শুরু হয়। দক্ষিণ আফ্রিকার ইনকন ইঞ্জিনিয়ারিং প্রজেক্টের মাধ্যমে প্রায় ৫১ কোটি ১৫ লাখ টাকা ব্যয়ে এই প্রকল্পটি বাস্তবায়নের দায়িত্ব পায় পদ্মা অয়েল কোম্পানি। ২০১৩ সলের জুন মাসে প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হবার কথা ছিলো। কিন্তু নির্মাণ কাজ শেষ না হওয়ায় প্রকল্পের মেয়াদ আরো বাড়ানো হয়। একই সঙ্গে প্রকল্প ব্যয় অতিরিক্ত ২ কোটি টাকা বাড়িয়ে ৫৩ কোটি ১৫ লাখ ৫০ হাজার টাকায় উন্নীত করা হয়।
দীর্ঘ প্রতিক্ষার সেই রিফুয়েলিং স্টেশন নির্মান কাজ সমাপ্ত। মঙ্গলবার দুটি বিমানে তেল প্রদানের মাধ্যমে পরীক্ষামূলকভাবে যাত্রা শুরু হলো। এবার শুধু উদ্বোধনের অপেক্ষা। এবার ওসমানী বিমানবন্দরকে পূর্ণাঙ্গ আন্তজার্তিক রুপে দেখার পালা। ওসমানী থেকেই সরাসরি বিদেশে যাওয়ার পথে কোনো বাধাই আর থাকলো না।
ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ (এয়ার ট্রাফিক) বেলায়েত আলী লিমন বলেন, মঙ্গলবার দুপুর ২ টায় ঢাকাগামী আমাদের একটি বিমানে রিফুয়েলিং স্টেশন থেকে পরীক্ষামূলকভাবে তেল প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া নভোএয়ারের একটি বিমানেও তেল প্রদান করা হয়।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close