নিউইয়র্কে ২০ বছরের ইতিহাসে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা

আমেরিকার কোন কোন স্টেটে জনজীবন বিপর্যস্ত

new yorkনিউইয়র্ক থেকে এনা : প্রচন্ড শৈত্য প্রবাহ ও ভয়ঙ্কর এবং বিপদজনক শীতের কবলে পড়ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কোন কোন স্টেটের লোকজন। এদিকে নিউইয়র্কে গত ২০ বছরের ইতিহাস ভঙ্গ করে সর্বনিন্ম তাপমাত্রা ২০ ডিগ্রি ফারেনহাইটের নিচে গিয়ে ঠেকেছে। ভয়ঙ্কর শীতের কারণে কেউ নিতান্ত দরকার ছাড়া বাইরে বের হচ্ছে না। টানা তুষার ঝড় শেষে অসহ্য শীত এবং বিপদজ্জনক আবহাওয়ার সতর্কবার্তা এসেছে আমেরিকানদের সামনে। সপ্তাহান্তে এই শীত মাইনাস ২০ ডিগ্রি ফারেনহাট পর্যন্ত নেমে যেতে পারে এবং একইসঙ্গে বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় ৬০ মাইল ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়া বিশেষজ্ঞরা। গত দুই দশকের মধ্যে নিউইয়র্কের তাপমাত্রা নেমে যাবার এই রেকর্ড জনজীবনে স্বাভাবিক চলাফেরায় বিঘ্ন ঘটার আশংঙ্কা রয়েছে।
গত মাসের শেষ সপ্তাহে নিউইয়র্কসহ যুক্তরাষ্ট্রের অনেকগুলো স্টেটের উপর দিয়ে বয়ে গেছে ভয়াবহ তুষার ঝড়। যার ভযাবহতা এখনো বিরাজ করছে ম্যাসাচুসেটস, নিউইয়র্ক, রোডআইল্যান্ড, ইলিনয় ও মিশিগানসহ বেশ কয়েকটি রাজ্যে। নিউইয়র্কে যে ধরনের তুষার ঝড়ের আগাম বার্তা দেয়া হয়েছিল সেটা অবশ্য তখন প্রতিফলিত হয়নি। কিন্তু অনেকগুলো স্টেট এখনো ১০ থেকে ২০ ইঞ্চি বরফের নিচে তলিয়ে গেছে। সেই ধকল না কাটতেই আবার দেয়া হয়েছে তীব্র ঠা-ার সতর্কবার্তা। নতুন এই সতর্কবার্তার আওতায় যেসব স্টেট রয়েছে তারমধ্যে অন্যতম নিউইয়র্ক, ম্যাসাচুস্টেস, মেনোপলিস, ইলিনয়, ডেট্রয়েট এবং পেনসিলভিয়া অন্যতম। আবহাওয়াবিদরা আশঙ্কা করছেন এবং আমেরিকার ওয়েদার চ্যানেলগুলো বলছে, নিউইয়র্কসহ কোন কোন স্টেটে তাপমাত্রা মাইনাস ২০ ডিগ্রি ফারেনহাইটেরও নিচে নেমে যেতে পারে।
ওয়েদারবাগের আবহাওয়াবিদ এন্ড্রু রোজেনথাল গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, শীতের এই তীব্রতা যুক্তরাষ্ট্রের গ্রীষ্মকালীন রাজ্য ফোরিডা পর্যন্ত ছড়িয়ে পড়তে পারে।
অ্যাকুওয়েদার আবহাওয়াবিদ ব্রায়ান লাডা বলেছেন, এই ঠা-ার তীব্রতা এত বেশি হতে পারে যে তা ঠিকমতো কাপড় না জড়ালে মৃত্যুও কারণ হতে পারে। বিশেষ করে ঘরের বাইরে যেতে হলে যথেষ্ট পোষাকে আচ্ছাদিত হয়ে যাবার জন্যও পরামর্শ দেয়া হয়েছে। শিশুদের জন্য তা আরও বেশি যতœশীল হবারও পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।
আবহাওয়াবিদদের বার্তামতে, এই শীত রোববার থেকে সোমবার পর্যন্ত দীর্ঘায়িত হতে পারে।
ওয়েদার চ্যানেলের আবহাওয়াবিদ নিক উইল্টজেন জানিয়েছেন, এই শীতয় নিউইয়র্কের সব রেকর্ড ভেঙে যাবে। অর্থাৎ গত ২০ বছরের মধ্যে এটাই হবে সবচেয়ে বেশি শীতের রেকর্ড। আবহাওয়াবিদরা এ ধরনের তাপমাত্রাকে ‘ভয়ঙ্কর ও বিপজ্জনক’ এবং বাতাসের গতিবেগকে ‘হিংস্র’ বলে আখ্যায়িত করেছেন।
আবহাওয়াবিদরা আরও জানিয়েছেন, ফোরিডার একাধিক এলাকায় শীত এত বেশি হবে যে নরম ফল এবং সব্জি জমে যাবে। এখানে উল্লেখ্য, ফোরিডা রাজ্যের তাপমাত্রা পুরো বছরজুড়ে গ্রীষ্মকালের মত থাকে। এই রাজ্যে প্রচুর সব্জি ও ফলমূলের চাষাবাদ হয়, যা দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের এক তৃতীয়াংশ এলাকার মানুষের চাহিদা মেটানো হয়।
শিশুদের বাইরে যাবার ব্যাপারে সব অভিবাবকদের প্রতি অনুরোধ জানানো হয়েছে তারা যেনো যথাযথ কাপড় না পড়ে বাইরে না যায়। এই তাপমাত্রায় ১০ মিনিটের মধ্যেই শরীরের চামড়া শক্ত হয়ে যাবার আশংকা আছে। ফেব্রুয়ারির এই সপ্তাহটি শীতের তীব্রতা থাকলেও রৌদ্রকরোজ্জল থাকবে বলে আশা করা হচ্ছে।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close