সিলেটে এইডসে ২৫ জনের মৃত্যু : একযুগে আক্রান্ত ৬১৫

sns-rt-cbre8aj12sf00সুরমা টাইমস ডেস্কঃ চলতি বছরের জানুয়ারি মাস থেকে অক্টোবর পর্যন্ত ১০ মাসে সিলেট অঞ্চলে ২৫ জন ব্যক্তি এইডসে মারা গেছে, যাদের বেশির ভাগই মধ্যপ্রাচ্য ফেরত যুবক ও তাদের স্বজনরা।
এমন তথ্য নিশ্চিত করেছে এইচআইভি-এইডস নিয়ে কর্মরত বেসরকারি সংস্থা আশার আলো।
সূত্র জানায়, গত একযুগে সিলেট অঞ্চলে আক্রান্ত হয়েছেন ৬১৫ জন। এর মধ্যে ইতিমধ্যে মারা গেছে ২৩৯ জন, বর্তমানে জীবিত আছেন ৩৭৬ জন। এর মধ্যে ২৮০ জন বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছে। আক্রান্তদের মধ্যে বেশির ভাগই পুরুষ। তবে নারী ও শিশুরাও রয়েছে।
তথ্য অনুযায়ী সিলেট অঞ্চলের মধ্যে সিলেট জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা সর্বাধিক ৪০৯ জন। এরপরই রয়েছে মৌলভীবাজার জেলায় ৯৯ জন, সুনামগঞ্জ জেলায় ৮৩ জন এবং হবিগঞ্জে ২৪ জন।
এদিকে বিশ্ব এইডস দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সোমবার সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয় গত এক বছরে দেশে এইডস আক্রান্ত ৯১ জনের মৃত্যু ঘটেছে। ওই সময়ের মধ্যে নতুন আরো ৪৩৩ জন এইচআইভি আক্রান্ত বলে শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট এইচআইভি আক্রান্ত ব্যক্তির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে তিন হাজার ৬৭৪। নতুন ৯১ জনসহ এইডসে দেশে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৫৬৩ জনে (১৯৮৯ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত)।
অনুষ্ঠানে জানানো হয়, সরকারের নিয়ন্ত্রণাধীন জাতীয় এইডস/এসটিডি কর্মসূচির আওতায় দেশের বিভিন্ন এলাকায় পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে এই আক্রান্ত ও মৃতদের শনাক্ত করা হয়।
বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালিক নতুন এ তথ্য প্রকাশ করেন। প্রতিমন্ত্রী এইডস-এইআইভি রোধে সরকারের চলমান কার্যক্রমের পাশাপাশি সর্বস্তরের মানুষের সচেতনতা বৃদ্ধির ওপর জোর দেন।
স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলামের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. দীন মো. নুরুল হক, পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক নূর হোসেন তালুকদার, বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব ডা. ইকবাল আর্সলান প্রমুখ। সোমবার প্রকাশিত তথ্যে জানানো হয়, ২০১৩ সালে ঢাকা জেলায় সবচেয়ে বেশি ৭৪ জন এইচআইভি-এইডসে আক্রান্ত হয়েছে। এ ছাড়া আক্রান্তের সংখ্যা সিলেটে ৪০ জন, চট্টগ্রামে ৩৯ জন এবং যশোরে ২১ জন। পাশাপাশি আরো আট জেলায় একজন করে এইডস রোগীর মৃত্যু ঘটে।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close