দক্ষিণ সুরমার প্রবীণ শিক্ষক আবদুল খালিক আর নেই

teacher dead pic 1-2-16দক্ষিণ সুরমার প্রবীণ শিক্ষক আবদুল খালিক (ডাক্তার স্যার) আর নেই। সোমবার দুপুর ২ টার দিকে বার্ধক্যজনিত রোগে তিনি সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন। (ইন্নালিল্লাহি…রাজিউন)। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিলো ৬৮ বছর। তিনি স্ত্রী, তিন মেয়ে, ২ ছেলে সহ অসংখ্য আত্মীয়স্বজন ও গুনগ্রাহি রেখে গেছেন। আব্দুল খালিক ১৯৮৪ সালে দক্ষিণ সুরমা উপজেলার মহালক্ষী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক হিসেবে শিক্ষকতা শুরু করেন। ২০১৪ সালে তালুকদার পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত তিনি এই দায়িত্বে ছিলেন। আব্দুল খালিকের গ্রামের বাড়ি লালাবাজারের হকিয়ার চর দুলালী বাড়ি। সোমবার বাদ মাগরিব দক্ষিণ সুরমা উপজেলার জৈনপুর আহলে সুন্নত জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে তাঁর প্রথম জানাযার নামাজ অনুষ্ঠিত হয় । জানাযার নামাজ পড়ান মাওলানা ক্বারি আবদুস শহীদ। লালাবাজারে গ্রামের বাড়িতে ২য় জানাযার নামাজ শেষে পারিবারিক কবরস্থানে মরহুমের দাফন সম্পন্ন হয়। জানাযায় উপস্থিত ছিলেন ২ নং বরইকান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হাবিব হোসেন, প্রবাসী ব্যবসায়ী গোলাম কিবরিয়া হিরা মিয়া, জহির-তাহির মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক কাজিম উদ্দিন, গোলাম আম্বিয়া তুলা মিয়া, প্রাক্তণ প্রধান শিক্ষক সালেহ আহমদ, সাবেক মেম্বার আবদুল খালিক লালু মিয়া, শানর মিয়া, বশির মিয়া, ব্যবসায়ী মবশ্বির আলী মানিক মিয়া, ময়নুল হক সাজু, মো.শাহিন রানা, আবুল কাশেম, বাদশাহ মিয়া, সোলেমান মিয়া, আলী আছকর মেম্বার, রকিব খান, ফকির খোকন মিয়া, ওলিউর রহমান, সম্রাজ মিয়া, আজমল হোসেন, আব্দুর রহিম, মোস্তাফিজুর রহমান মিসবাহ, মঈন উদ্দিন, আবুল বশর, নিজাম উদ্দিন। জানাযায় আবÍুল খালিকের অসংখ্য প্রক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা অংশ নেন।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close