মৃত্যুর ১৯ বছর পর সালমান শাহ’র মৃত্যুসংক্রান্ত মামলার নথি তলব করেছেন হাইকোর্ট

Salman Shahডেস্ক রিপোর্টঃ ৭ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার হঠাৎ আদালতে প্রয়াত চিত্রনায়ক সালমান শাহর প্রসঙ্গটি উঠে। তার মৃত্যুর ১৯ বছর পর মৃত্যুসংক্রান্ত মামলার নথি তলব করেছেন আদালত। সালমানের মা নীলা চৌধুরীর আবেদনের প্রেক্ষিতে ঢাকার মহানগর দায়রা জজ কামরুল হাসান মোল্লা এ নথি তলব করেন। একই সঙ্গে আদালত ঢাকার ক্যান্টনমেন্ট থানার ওই রিভিশন মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেছেন ২৮ জানুয়ারি।

আবেদনে বলা হয়েছে, সালমান শাহর মৃত্যুর পর তার বাবা ক্যান্টনমেন্ট থানায় চুরি ও ষড়যন্ত্র সংক্রান্ত একটি মামলা করেন। সেই মামলায় ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছিলেন মামলার আসামি রিজভী আহমেদ। ওই মামলাটি নিষ্পত্তি হয়েছে। কিন্তু ওই মামলার নকল কপি তোলার জন্য আবেদন করলে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালত থেকে তা সরবরাহ করা হয়নি। তাই মামলার মূল নথি তলব করা জরুরি। শুনানি শেষে আদালত নীলা চৌধুরীর আবেদন মঞ্জুর করেন।

নীলা চৌধুরীর করা একটি পিটিশন মামলায় বলা হয়েছে, ক্যান্টনমেন্ট থানার ওই মামলায় রিজভী আহমেদ স্বেচ্ছায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। তিনি নিজে ও অন্য আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে রাত চারটায় গভীর ঘুমে মগ্ন থাকা অবস্থায় সালমান শাহকে চেতনানাশক ইনজেকশন দেয়। পরে বিদ্যুতের তার দিয়ে আত্মহত্যার মতো করে শ্বাসরোধ করে। কিন্তু জবানবন্দি দেওয়া ওই যুবককে পুলিশ গ্রেফতার করেনি।

উল্লেখ্য, ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর মারা যান চিত্রনায়ক সালমান শাহ। সে সময় তার বাবা কমরউদ্দিন আহমদ চৌধুরী এ বিষয়ে অপমৃত্যুর মামলা করেন। পরে ১৯৯৭ সালের ২৪ জুলাই ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে অভিযোগ করে মামলাটিকে হত্যা মামলায় রূপান্তরিত করার আবেদন জানান তিনি। অপমৃত্যুর মামলার সঙ্গে হত্যাকাণ্ডের অভিযোগের বিষয়টি একসঙ্গে তদন্ত করতে সিআইডিকে নির্দেশ দেন আদালত। তদন্ত করে ১৯৯৭ সালের ৩ নভেম্বর সালমান শাহর মৃত্যুকে আত্মহত্যা বলে আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করে সিআইডি।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close