বিশ্বনাথে জেলা প্রশাসকের মতবিনিময়

উন্নয়নের চাবিকাটি হচ্ছে শিক্ষা ……মো. জয়নাল আবেদীন

picবিশ্বনাথ প্রতিনিধি: সিলেটের জেলা প্রশাসক মো. জয়নাল আবেদীন বলেছেন, সিলেট একটি ঐতিহ্যবাহী জেলা। ওই জেলার জনগণও ঐতিহ্যবাহী। ফলে সিলেটে শিক্ষার হার বাড়াতে হবে। উন্নয়নের চাবিকাটি হচ্ছে শিক্ষা। সচেতনতা ও শিক্ষা যেখানে সে জাতি ততই উন্নত। তিনি বলেন, নিজ নিজ অবস্থান থেকে শিক্ষাকে এগিয়ে নিতে হবে। সরকারের পাশাপাশি বৃত্তবানদেরকেও এগিয়ে আসতে হবে। ঝড়ে পড়া শিক্ষার্থী রোধ করতে হবে। বিদ্যালয়ে দুপুরের খাবারের ব্যবস্থা করে দিলে শিশুরা পড়ালেখায় আরো এগিয়ে আসবে।
জেলা প্রশাসক বলেন, জনসংখ্যা বাড়লে মাথাপিছু আয় কমে আসে। এক্ষেত্রে আরো সচেতন হতে হবে। কৃষি ক্ষেত্রে আজ দেশ সয়ং সম্পর্ণ। খাদ্যে ভরপুর দেশ। সরকার পতিত জমি চাষাবাদের আওতায় আনার কাজ শুরু করেছে। সে হিসেবে প্রবাসী অধ্যূষিত বিশ্বনাথ উপজেলার লামাকাজি ইউনিয়কে বাচাই করা হয়েছে। শুধু বিশ্বনাথ নয় সিলেটের প্রতিটি উপজেলায় একটি করে ইউনিয়ন বাচাই করা হয়েছে। পর্যায় ক্রমে সকল ইউনিয়নকে মডেল ইউনিয়নে রুপান্তর করা হবে। এতে সবার সহযোগিতার প্রয়োজন।
মো. জয়নাল আবেদীন বলেন, ২০৪১ সালের মধ্যে বিশ্বের মধ্যে একটি উন্নয়ন রাস্ট্রে পরিণত হবে। ছাড়িয়ে যাবে চীনের মতো দেশকে। সিলেটের বিশ্বনাথে গতকাল মঙ্গলবার বিশ্বনাথ উপজেলা প্রশাসক আয়োজিত পরিষদ মিলনায়তনে বিশিষ্টজনদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ আসাদুল হক এর সভাপতিত্বে ও সহকারী কমিশনার (ভুমি) মো. রুহুল আমিনের পরিচালনায় সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিশ্বনাথ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সুহেল আহমদ চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বাবুল আখতার, উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান আহমদ নূরউদ্দিন, উত্তর বিশ্বনাথ আমজদ উল্লাহ কলেজের অধ্যক্ষ নেছার আহমদ।
মতবিনিময় সভায় অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আবদুল ওয়াহিদ, উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান স্বপ্না শাহিন, খাজাঞ্চি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নিজামউদ্দিন সিদ্দিকী, অলংকারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. লিলু মিয়া, রামপাশা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার খান, দৌলতপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্বাস আলী, দেওকলস ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তাহিদ মিয়া, দশঘর ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান ছাতির, দৌলতপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আমির আলী, রামসুন্দর অগ্রগামী উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক আব্দুল বারী, বিশ্বনাথ প্রেসকাব সভাপতি মিজানুর রহমান মিজান, সহ-সভাপতি তজম্মুল আলী রাজু, সহ-সাধারণ সম্পাদক এমদাদুর রহমান মিলাদ, কোষাধ্যক্ষ মোহাম্মদ আলী শিপন, সদস্য নূর উদ্দিন, অসিত রঞ্জন দেব, আবুল কাশেম, সাংবাদিক জাহাঙ্গীর আলম খায়ের, মামুনুর রশীদ মামুন, আক্তার আহমদ সাহেদ, আওয়ামী লীগ নেতা শফিকউদ্দিন স্বপন, নিখিল পাল, মহব্বত আলী জাহান, রনজিত ধর রন মেম্বার, সেলিম আহমদ, আবুল কালাম জুয়েল, নুরুল ইসলাম, মুক্তার মিয়া, বিএনপি নেতা সিরাজ খান, যুবলীগের আহবায়ক মকদ্দছ আলী, যুবলীগ নেতা রফিক হাসান, তাজুল ইসলাম, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অজিত পাল, সাধারণ সম্পাদক জয়ন্ত আচার্য, ছাত্রলীগ নেতা সায়েদ আহমদ প্রমুখ। এছাড়া প্রশাসন, শিক্ষক, শিক্ষিকা, উদ্যোক্তা, রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার লোকজন উপস্থিত ছিলেন। এদিকে সিলেটের জেলা প্রশাসক মো. জয়নাল আবেদীন উপজেলা শহরের মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়ন পরিষদ পরিদর্শন করেন।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close