ডিবির ৪ সদস্যকে ধরে নিয়ে গেছে বিএসএফ

BSF1সুরমা টাইমস ডেস্কঃ কুমিল্লায় গোয়েন্দা বিভাগের (ডিবি) পুলিশের দুই সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) ও দুই কনস্টেবলকে ধরে নিয়ে গেছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) সদস্যরা। বুধবার সন্ধ্যায় ব্রাহ্মণপাড়ার আশাবাড়ি সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে তাদের ধরে নিয়ে যায়। আটক কর্মকর্তারা হলেন- ডিবি পুলিশের এএসআই সবুজ, এএসআই আলমগীর, কনস্টেবল সেলিম এবং কনেস্টবল তাপস। মোবাইল ফোনে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঘটনার পরপর ঘটনাস্থলে ছুটে যাওয়া ডিবির এসআই শহীদুল ইসলাম। বিএসএফ সদস্যরা বাংলাদেশ সীমান্তের একশ গজ ভেতরে প্রবেশ করে ডিবি পুলিশের ওই চার সদস্যকে নিয়ে যায় বলে জানায় স্থানীয় সূত্র।
সূত্রমতে, বুধবার সন্ধ্যায় ব্রাহ্মণপাড়ার শশীদল সীমান্তবর্তী এলাকায় ২০৫৯ নং পিলারের কাছে আশাবাড়ি গ্রামের জলিলের বাড়িতে অভিযান চালায় ডিবি কর্মকর্তারা। তারা দুই মাদকব্যবসায়ীকে আটক করে হ্যান্ডকাপ লাগিয়ে নিয়ে আসতে থাকে। এসময় মাদকব্যবসায়ীদের অনুসারী এলাকার কিছু লোক ডিবি পুলিশের ওপর হামলা চালায়। ডিবির সদস্যরা আত্মরক্ষায় দ্রুত ছুটে আসার সময় মাদক ব্যবসায়ীর লোকজন তাদের আটকে মারধর করে। এসময় বিএসএফ সদস্যরা বাংলাদেশের সীমানায় ঢুকে পড়ে জনতার হাত থেকে ডিবি পুলিশের চার সদস্যকে ধরে ভারতে নিয়ে যায়। আক্রমণকারীরা ডিবি পুলিশের দুটি পিস্তলও ছিনিয়ে নিয়েছে।
এদিকে আটক চার ডিবি সদস্য ভারতের বক্সনগরের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে বলেও অসমর্থিত একটি সূত্র জানায়।
শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত কুমিল্লা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনজুরুল আলম, এসআই শহীদুল ইসলাম এবং বিজিবির শশীদল বিওপি ও সালদানদী বিওপির সদস্যরা ঘটনাস্থলে অবস্থান করছেন। বিএসএফের সঙ্গে বৈঠকের মাধ্যমে আটক ডিবি পুলিশের চারজনকে ফিরিয়ে আনার তৎপরতা চালানো হচ্ছে বলেও ডিবি পুলিশ সূত্র জানিয়েছে।
এদিকে কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর আলম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, ডিবি’র ওই চার সদস্য অসতর্কতামূলক ভাবে সীমান্ত এলাকায় ঢুকে পড়লে বিএসএফ তাদের ধরে ফেলে। তবে বিজিবির কোনো কর্মকর্তা এ বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close