কানাইঘাটে অপহরণের ৫ দিনেও উদ্ধার হয়নি স্কুল ছাত্রী

অমি আর ধৈয্য ধরে রাখতে পারছি না- ছাত্রীর মা

কাওছার আহমদ, কানাইঘাট (সিলেট) প্রতিনিধিঃ সিলেটের কানাইঘাট উপজেলায় আজরা মাইশা (১৩) নামের ৮ম শ্রেণীর এক স্কুল ছাত্রী অপহরণের ৫ দিনেও উদ্ধার হয়নি। এতে স্বজনদের মধ্যে উদ্বেগ-উৎকন্ঠা বাড়ছে। এ ঘটনায় ঐ ছাত্রীর মা বাদী হয়ে কানাইঘাট থানায় অপহরণের অভিযোগ এনে একটি মামলা দায়ের করেছেন। এজাহারে জানা যায়, গত রোববার সকাল ৮টায় প্রতিদিনের মত স্কুল ছাত্রী মাইশা নিজ বাড়ী পৌরসভার দুর্লবপুর গ্রাম থেকে প্রাইভেট ক্লাস করার জন্য স্কুলে যাচ্ছিল। মনসুরীয়া ত্রিমুহনী রাস্তায় আসা মাত্র পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে একই এলাকার মৃত ইসহাক আলীর ছেলে বাহার উদ্দিন (২১), জমির উদ্দিন (২৪), এনাম উদ্দিন (২৮) গংরা জোরপূর্বক মাইশাকে একটি সিএনজি (অটোরিক্রাা) থে উঠিয়ে অপহরণ করে নিয়ে যায়। অন্যান্য দিনের মত সকাল ১১ টায় প্রাইভেট ক্লাস থেকে বাড়ি না ফেরায় স্বজনরা সম্ভাব্য বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুজি করে কোথাও না পেয়ে তাৎক্ষনিক কানাইঘাট থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। যার নং- ৬৪২, তাং-১৫/০৩/২০১৫। পরবর্তীতে প্রতিবেশী মৃত জায়ফর আলীর পুত্র নুরুল আমীন ও ছোটদেশ গ্রামের মামুনুর রশিদ‘র কাছ থেকে জানতে পারেন বাহার গংরা জোরপূর্বক মাইশাকে অপহরণ করে নিয়ে গেছে। এরপর বিভিন্ন তথ্যের ভিত্তিতে নিশ্চিত হয়ে ঐ ছাত্রীর মা শাকিরা বেগম নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে অপহরণের অভিযোগ এনে গত মঙ্গলবার বাহার উদ্দিনসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে কানাইঘাট থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার নং-১২, তাং- ১৭/০৩/২০১৫ইং। ঐ ছাত্রীর মা শাকেরা বেগম এ প্রতিবেদককে বলেন, আমি ধৈয্য ধওে রাখতে পারছি না। আমার মেয়ে অপহরনের ৫ দিন অতিবাহিত হলেও কোন সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না। এমনকি পুলিশ প্রশাসনও সঠিক কোন তথ্য আমাকে জানাতে পারছে না। এ ব্যাপারে তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই রাশেদুল আলম খান জানান, মেয়েটি উদ্ধারের জন্য জোরালো তৎপরতা চলছে, গতকাল বাহার উদ্দিনের মা ৪নং আসামী ফয়জুন বেগমকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close