নগরীর নিরাপত্তায় নারী পুলিশের প্রটেকশন টিম

female policeসুরমা টাইমস ডেস্কঃ ঈদবাজারে ইভটিজার ও মহিলা পকেটমারদের পাকড়াও করতে নামানো হয়েছে ক্লোজ প্রকেটশন টিম। বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত নারী পুলিশের সমন্বয়ে এই টিম গঠন করা হয়েছে। পাশাপাশি মৌসুমী অপরাধীদের ধরতে সাদা পোশাকে পুলিশের ৩৫টি টিম মাঠ চষে বেড়াচ্ছে। চার টিমে বিভক্ত মহিলা পুলিশের প্রশিক্ষিত সদস্যরা ইউনিফর্ম ও সিভিল পোশাকে দায়িত্ব পালন করছেন। তাদের সহায়তা করার জন্য রয়েছে স্ট্রাইকিং ফোর্সও। নগরীর মোড়ে মোড়ে বসানো হচ্ছে সিসিটিভি ক্যামেরা। সব মিলিয়ে এবার সিলেট নগরীর নিরাপত্তায় রয়েছে এক হাজার সাতশ’ পুলিশ সদস্য। ঈদবাজারে সিলেট মহানগর পুলিশের (এসএমপি) এ নিরাপত্তা পরিকল্পনা। যা অপরাধীদের জন্য অশনি সংকেত।
সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (মিডিয়া) রহমত উল্লাহ বলেন, ঈদবাজার ঘিরে মৌসুমী অপরাধীরা সক্রিয় হয়ে ওঠে। অপরাধীদের রুখতে এসএমপি’র তরফে নানামুখি পদক্ষেপের অংশ হিসেবে নগরজুড়ে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। যে কারণেই এবার রমজানে অপরাধ কমেছে।
সিলেট মহানগর পুলিশ সূত্র জানায়, ঈদুল ফিতর উপলক্ষে নগরীর আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ রাখার জন্য তিন ধাপে কৌশল নির্ধারণ করেছে এসএমপি। নগরীর ৬ থানার পুলিশকে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য সর্বোচ্চ সতর্কতাবস্থায় দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
বর্তমানে নগরীতে ৭০জন নারীসহ পুলিশের ১৭শ’ সদস্য তিন স্তরের নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছেন। এরমধ্যে এবারই মাঠে নামানো হয়েছে বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত নারী পুলিশ সদস্যেদের নিয়ে গঠিত চারটি ক্লোজ প্রটেকশন টিম।
চার টিমে বিভক্ত ১২ জন নারী পুলিশের প্রতিটি টিমে নেতৃত্ব দিচ্ছেন ইনসপেক্টর পদবির একজন চৌকস কর্মকর্তা। এছাড়া পুরুষ ও নারী সমন্বয়ে ১২টি টিমসহ পুলিশের ৩৫টি টিম মাঠ পর্যায়ে নিরাপত্তায় নিয়োজিত রয়েছে। এছাড়াও সঙ্গে থাকছে আর্মড পুলিশ ব্যাটেলিয়নও। রয়েছে সাদা পোশাকধারী থানা পুলিশের একাধিক মোবাইল টিম। এমএমপি’র ছয়টি থানা এলাকায় রয়েছে মোটর সাইকেল আরোহী সাদা পোশাকধারী পুলিশও। নগরীর গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে আকস্মিক মোবাইল টিম তল্লাশি অভিযানের মধ্য দিয়ে অপরাধীদের শনাক্তকরণ এমনকি বিস্ফোরক দ্রব্যসহ অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার পদক্ষেপ রয়েছে।
অতিরিক্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করতে বিভিন্ন মার্কেটের বাইরে পুলিশের মোবাইল টিমগুলো ঘূর্ণায়মান অবস্থায় রাখা হয়েছে।
এ ব্যাপারে অতিরিক্ত উপ কমিশনার (মিডিয়া) রহমত উল্লাহ আরো বলেন, অপরাধ সংঘঠিত হওয়ার সাথে সাথেই অপরাধীদের পাকড়াও করতে এ ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।
নতুন এই পরিকল্পনার জালে ইতোমধ্যে অপরাধীও ধরা পড়ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ঈদবাজারই নয়, ঈদ ছুটিতে ঘরমুখো মানুষের আবাসস্থলগুলোতে চুরি-ডাকাতি রোধে পুলিশ প্রহড়ায় থাকছে।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close