‘সংবিধানে গণভোট সংযোজন প্রয়োজন’

sujon-logo_6544_27229সুরমা টাইমস রিপোর্টঃ দেশে নির্বাচন পদ্ধতির জন্য সংবিধানে রেফারেন্ডাম (গণভোট) ব্যবস্থা সংযোজন প্রয়োজন বলে মনে করেন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা আকবর আলী খান।
বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) আয়োজিত ‘বাংলাদেশের গণতন্ত্রের পরিস্থিতি কিছু ভাবনা’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে এ মন্তব্য করেন তিনি।
ড. আকবর আলী খান বলেন, “বাংলাদেশের রাজনীতির প্রধান সমস্যা হচ্ছে নির্বাচন কীভাবে হবে তা নির্ধারণ। আমাদের শাসন ব্যবস্থার দুর্বলতা রয়েছে। এটি তৈরি হয়েছে সংবিধানের দুর্বলতার কারণে।”
তিনি বলেন, “যে সরকার ক্ষমতায় থাকে সংবিধানের দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে তারা এমন সব পরিস্থিতি তৈরি করে যাতে নির্বাচন সুষ্ঠু হয় না। এ কারণে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ প্রয়োজন এবং নির্বাচন পদ্ধতির ব্যাপক পরিবর্তন করতে হবে। নির্বাচন পদ্ধতির জন্য সংবিধানে রেফারেন্ডাম (গণভোট) ব্যবস্থা সংযোজন করতে হবে। সংবিধানে যদি এ ব্যবস্থা থাকে তবে নির্বাচনসহ যেকোনো সমস্যার সমাধান সম্ভব।”
২০০৭ সালের তত্ত্বাবায়ক সরকার ব্যবস্থার কথা উল্লেখ করে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক এই উপদেষ্টা বলেন, “তখন আমি আওয়ামী লীগ কিংবা বিএনপি কারো কথাই শুনি নাই। আমি চেয়েছিলাম গণভোট পদ্ধতিতে জনগণের মত নিতে। কিন্তু সেটির কী হয়েছে তা আপনারা জানেন!”
তিনি বলেন, “রাজনীতি এখন হালুয়া-রুটির ভাগবাটোয়ারায় পরিণত হয়েছে। পৃথিবীর অন্যান্য দেশে আদর্শবাদীরা রাজনীতিতে আসলেও আামাদের দেশে তারা দূরে সরে থাকেন। এজন্য সচেতন এবং আদর্শবাদীদের রাজনীতিতে আসতে হবে। তা না হলে সংকট সমাধান সুদূর পরাহত।”
ড. আকবর আলী বলেন, “বর্তমানে রাজনীতিতে যে অবস্থা তাতে স্বস্তির কোনো কারণ নেই। এক্ষেত্রে জনগণকে সক্রিয়ভাবে রাজনীতিতে অংশগ্রহণ করতে হবে।”
অনুষ্ঠানে সুজন সভাপতি এম হাফিজ উদ্দিন খানের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন বিচারপতি কাজী এবায়দুল হক, সাবেক প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক আবু সাঈদ প্রমুখ।
অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সুজন সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার। মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ড. রওনক জাহান।
হাফিজ উদ্দিন বলেন, “রাজনীতি এখন কলুষিত ও নষ্ট। কারণ যারা রাজনীতি করেন তারা নিজেরাই নষ্ট। তবে এ ক্ষেত্রে উত্তরণ ঘটাতে জনগণকে সচেতন ও সক্রিয় হতে হবে। তাহলে হয়ত আমাদের দুঃসহ অবস্থা থেকে মুক্তির সুযোগ আসতে পারে। প্রত্যেক রাজনীতিককে নিজ ও দলের স্বার্থ জলাঞ্জলি দিয়ে দেশের স্বার্থে রাজনীতি করতে হবে।”
তিনি বলেন, “প্রধানমন্ত্রী বলেন, অনির্বাচিতদের ক্ষমতায় থাকার সুযোগ নেই। কিন্তু আমরা দেখছি, ডিসিসিসহ স্থানীয় ব্যবস্থায় অনির্বাচিতদের দিয়ে ক্ষমতা পরিচালনা হচ্ছে।” শিগগিরই ডিসিসি নির্বাচনের দাবি জানান সুজন সভাপতি।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close