এস আই দেলোয়ারের বিরুদ্ধে অভিযোগ দেওয়ার খেসারত

কানাইঘাটে এম.ফিল গবেষকের বসতভিটা দখলের চেষ্টা
মসজিদের ইমামসহ ৩ ভাই বোন আটক ॥ ২ বোনের জামিন লাভ

SAMSUNG DIGIMAX A403কানাইঘাট প্রতিনিধিঃ কানাইঘাট থানার এক পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে পুলিশ সুপার বরাবরে আবেদন করায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এম.ফিল গবেষকের বসত ভিটা দখল নিতে প্রতিপক্ষকে লেলিয়ে দিয়েছেন কানাইঘাট থানা পুলিশ। আইন আদালত কে তোয়াক্কা না করে নিজেরা অতি উৎসাহী হয়ে ঐ এম.ফিল গবেষকের ৩ ভাই বোন কে বিনা কারনে ঘর থেকে আটক করে মিথ্যা মামলা সাজিয়ে আদালতে সোপর্দ করেছে কানাইঘাট থানা পুলিশ। অবশেষে মহামান্য আদালত আজ (শনিবার) ২ বোন কে জামিন প্রদান করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে কানাইঘাট থানা সদরের নিকটবর্তী ডালাইচর এলাকায় গত শুক্রবার দুপুর ১২ টায়। ঐ দিন কোন কারন ছাড়া কানাইঘাট থানার এস আই মো: ওয়াহেদুজ্জামান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এম.ফিল গবেষক কানাইঘাট এলাকার সন্তান আলীম উদ্দিনের ডালাইচরস্ত বসত ভিটা থেকে তার ভাই মসজিদের ইমাম মাওলানা নিজাম উদ্দিন (৩০), ফাতেমা বেগম (৩৫), ফরিদা বেগম (৪৫) কে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন। পরে রাতভর পুলিশের এই কর্মকর্তারা প্রতিপক্ষকে থানায় নিয়ে এসে বাড়ীঘরের নির্মান কাজ বন্ধ সহ আপাতত বাড়ী ছেড়ে দেওয়ার কথা বলেন। এতে রাজী না হওয়ায় সকালে আলীম উদ্দিনসহ পরিবারের সকল সদস্য কে আসামী করে মিথ্যা ঘটনা সাজিয়ে একটি মামলা দায়ের করে শনিবার দুপুরে ভাই মসজিদের ইমাম মাওলানা নিজাম উদ্দিন, বোন ফাতেমা বেগম ও ফরিদা বেগম কে আদালতে সোপার্দ করেন। মহামান্য আদালত ২ সন্তানের জননী ফাতেমা বেগম ও বৃদ্ধা ফরিদা বেগম কে শনিবার দুপুরে জামিন প্রদান করেন। এ বিষয়ে আলীম উদ্দিন জানান অবৈধভাবে আমার বসত ভিটার নির্মান কাজ বন্ধ করার মোখিক নির্দেশ প্রদান করায় আমি গত ১৪ই মে কানাইঘাট থানার এস আই দেলোয়ার সাহেবের বিরুদ্ধে পুলিশ সুপার বরাবরে লিখিত অভিযোগ দেওয়ায় এলাকার চিহ্নিত একটি ভুমিখেকোচক্র কে লেলিয়ে দিয়ে আমার বসত ভিটা দখল নেওয়ার অপচেষ্টার বহিঃপ্রকাশ ঘঠিয়েছে কানাইঘাট থানা পুলিশ। বিনা অপরাধে আমিসহ আমার পরিবারের সকল সদস্য কে মিথ্যা মামলা দায়ের, গ্রেফতার ও বাড়ী ছাড়া করে প্রতিপক্ষকে আমার বসত ভিটা তুলে দিতে চাচ্ছেন পুলিশের এই সদস্যরা। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কোন কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহন না করে ২৪/০৫/২০১৪ ইং তারিখে অত্র থানার মামলা নং ১৬ গ্রহণ করেন। এই মিথ্যা মামলা তিনি কিভাবে গ্রহন করেছেন আমি তা বুঝতে পারলাম না। আমি পুলিশ বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দকে বিষয়টি মোবাইল ফোন জানিয়েছি। আমি সকলের কাছে আমার বসত ভিটা রক্ষায় সহযোগীতা কামনা করছি। আমি ঐ বাড়ীতে শান্তিপূর্ণ বসবাস করে আসছি। বাড়ীতে ১ টি পুকুর, ২টি কাঁচা ও পাকাঘরসহ কাটা তারের বেড়া রয়েছে। প্রতিপক্ষের সাথে মামলায় ও আমি বৈধতা পেয়েছি। আদালতের কোন ধরনের নিষেদাজ্ঞা নেই। মহামান্য আদালত আমার পক্ষে রায় প্রদান করেছেন।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close