৭ হত্যার বিচার না হলে না.গঞ্জে বিশৃঙ্খলা দেখা দেবে : একান্ত সাক্ষাতকারে আইভী

mayor ivyসুরমা টাইমস ডেস্কঃ নব্বইয়ের দশকে রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হয়ে নারায়ণগঞ্জের গণমানুষের নেতায় পরিণত হয়েছেন তিনি। ৮ বছর পৌর মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালনের পর বর্তমানে তিনি নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র। সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জে আলোচিত সাত খুন, গুম-অপহরণের ঘটনা নিয়ে কথা বলেছেন একটি অনলাইন পত্রিকার সঙ্গে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন মহিউদ্দিন মাহী।

প্রশ্ন: সাত খুনের বিচার নিয়ে আপনার কোনো শঙ্কা আছে কী?
সেলিনা হায়াৎ আইভী: এই হত্যার বিচার না হলে নারায়ণগঞ্জে বিশৃঙ্খলা দেখা দেবে। বিচারের দাবিতে মানুষ রাস্তায় নেমে এলে তা কারও জন্য সুখকর হবে না। আমার বিশ্বাস এই ঘটনার রহস্য উন্মোচনে সরকার আন্তরিক। কারণ সরকার তার নিজের স্বার্থেই এর বিচার করবে। না হলে মানুষ সরকারের প্রতি আস্থা হারাবে।
প্রশ্ন: প্রধান আসামি তো এখনও গ্রেপ্তার হয়নি। আপনি কি মনে করেন?
সেলিনা হায়াৎ আইভী: প্রধান সন্দেহভাজন আসামি নূর হোসেনের বাড়িতে ঘটনার সাত দিন পর অভিযান চালানোর বিষয়টি প্রশ্নবিদ্ধ। এরপরও প্রশাসন সেখানে অভিযান চালিয়েছে এটা আশার কথা। এতদিন তো নূর হোসেন বিশেষ গোষ্ঠীর আশীর্বাদে ধরাছোঁয়ার বাইরে ছিল। নতুন প্রশাসন এই অভিযানের মাধ্যমে তাদের আন্তরিকতার প্রমাণ দিয়েছে।
প্রশ্ন: এই ঘটনার জন্য নিহত নজরুলের শ্বশুর র‌্যাবকে দায়ী করছেন। তিনি বলেছেন, ৬ কোটি টাকা লেনদেনে এই খুন হয়েছে।
সেলিনা হায়াৎ আইভী: নজরুলের শ্বশুর শহীদ চেয়ারম্যান যেহেতু অভিযোগ করেছেন সেহেতু তিনিই এ বিষয়ে ভালো বলতে পারবেন। এ বিষয়ে আমার কোনো কিছু বলার নেই। তিনি তো একেক সময় একেক কথা বলছেন।
প্রশ্ন: একই ধরনের ঘটনায় বার বার আলোচনায় আসছে নারায়ণগঞ্জ। গুম-খুনের পুনরাবৃত্তির কারণ কী বলে আপনার মনে হয়?
সেলিনা হায়াৎ আইভী: নারায়ণগঞ্জে একটি পরিবার সন্ত্রাস, হত্যা, গুম ও খুনের জন্য দায়ী। এই পরিবারকে এখনই নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। আলোচিত-সমালোচিত এই পরিবারকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারলেই নারায়ণগঞ্জে শান্তি ফিরে আসবে। অপরাধ করেও যদি অপরাধীরা পার পেয়ে যায় তাহলে তো এমন ঘটনা ঘটতেই থাকবে।
প্রশ্ন: সম্প্রতি হত্যার শিকার নজরুল ইসলাম এবং হত্যা মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেন দুই জনই আপনার সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর। তাদের মধ্যে বিরোধের কথা কি জানতেন?
সেলিনা হায়াৎ আইভী: হ্যাঁ, আমি শুনেছি। কিন্তু এসব বিষয়ে তাদের সঙ্গে কখনও বিস্তারিত কথা হয়নি।
প্রশ্ন: শামীম ওসমান একটি রেকর্ড দেখিয়ে নজরুল হত্যার ঘটনায় আপনার লোকজনের জড়িত থাকার কথা বলেছেন। এ বিষয়ে আপনার বক্তব্য কী?
সেলিনা হায়াৎ আইভী: আমিও শুনেছি তিনি নাকি একটি রেকর্ড পেয়েছেন। রেকর্ডে অপহরণ ও খুনের সঙ্গে আমার লোকজনের জড়িত থাকার প্রমাণ রয়েছে। তাহলে অপহরণের এতদিন পার হয়ে গেলেও তিনি কেন তা প্রচার করছেন না। আমি পরিষ্কার ভাষায় বলতে চাই আমার লোকজন কেন, এই মার্ডারের সঙ্গে জড়িত মর্মে যদি আমার নাম উঠে আসে তবে প্রয়োজনে আমাকেও গ্রেপ্তার করা হোক। যেভাবেই হোক নারায়ণগঞ্জের মানুষ এই ঘটনার রহস্য উন্মোচন দেখতে চায়।
প্রশ্ন: আবু সুফিয়ান নামে এক নেতা আপনার সঙ্গে রাজনীতি করে। শামীম ওসমান বলেছেন সুফিয়ানও এই হত্যাকা-ের সঙ্গে জড়িত। আপনার অভিমত কী?
সেলিনা হায়াৎ আইভী: সুফিয়ানকে বিভিন্ন হত্যার সঙ্গে জড়ানোর চেষ্টা তিনি (শামীম ওসমান) এর আগেও অনেকবার করেছেন। সুফিয়ানের নামে মামলাও দিয়েছিলেন তিনি। আক্রোশের বশবর্তী হয়ে তিনি এসব কথা বলছেন কি না সেটাও দেখতে হবে। যদি সুফিয়ান জড়িত থাকে তার বিচার হবে। কিন্তু শামীম ওসমান শত্রুতার জেরেই বলছেন বলে আমার মনে হয়।
প্রশ্ন: নজরুল ইসলাম কি কখনও আপনার কাছে তার জীবন বিপন্ন হওয়ার আশঙ্কার কথা বলেছিলেন?
সেলিনা হায়াৎ আইভী: নজরুলের মধ্যে একটা শঙ্কা ছিল। আমি তাকে বলেছিলাম আপনারা যার সঙ্গে রাজনীতি করেন তার কাছে গিয়ে বিষয়টা মিটিয়ে ফেলেন। এর বাইরে তেমন কথা হয়নি।
প্রশ্ন: সিটি করপোরেশনের একটি নালা সংস্কারের ঘটনায় উভয়ের মধ্যে বিরোধের ঘটনার কথা জানতেন আপনি?
সেলিনা হায়াৎ আইভী: হ্যাঁ এই ঘটনাটা শুনেছি। নূর হোসেনের এক আত্মীয়ের জায়গা নিয়ে গ-গোল হয়েছিল। ওই ঘটনার প্রেক্ষিতেই মামলা হয়েছিল বলে শুনেছি।
প্রশ্ন: আগের গুম-খুনের রহস্য কি কারণে উদঘাটন করা যায়নি বলে মনে করেন?
সেলিনা হায়াৎ আইভী: উদঘাটন করা যায়নি বলব না, গুম-খুনের ঘটনা উদঘাটন করা হয়নি বলেই মনে হয়।
প্রশ্ন: এমন মনে হওয়ার কারণ কী?
সেলিনা হায়াৎ আইভী: নারায়ণগঞ্জের প্রশাসনকে আমি দক্ষ প্রশাসন বলে মনে করি। তারা ইচ্ছা করলেই ঘটনার রহস্য উদঘাটন করতে পারতেন।
প্রশ্ন:কেন হয়নি? রাজনৈতিক প্রভাবের কারণে কী এমন হয়েছে?
সেলিনা হায়াৎ আইভী: শুধু নারায়ণগঞ্জ নয় সব জায়গাতেই প্রশাসনে রাজনৈতিক প্রভাব থাকে। এখানেও তাই হয়েছে।
প্রশ্ন: জেলা প্রশাসনের শীর্ষ পাঁচ কর্মকর্তাকে তো প্রত্যাহার করা হয়েছে। এটা কি যথাযথ পদক্ষেপ বলে মনে করেন?
সেলিনা হায়াৎ আইভী: প্রশাসনে নতুন যারা যোগ দিয়েছেন বা দিবেন তারা কি করেন সেটা আমরা দেখব। তবে আমি যতদূর শুনেছি তারা খুব দক্ষ কর্মকর্তা। আশা করি তারা প্রকৃত অপরাধীদের আইনের আওতায় আনবেন।
প্রশ্ন: প্রশাসনের আরও উচ্চ পর্যায়ের দায়িত্বশীলদের ওপরেও কি ব্যর্থতার দায় পড়ে না?
সেলিনা হায়াৎ আইভী: আমি যতদূর জানি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে নেওয়া হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিজেই বিশেষ নির্দেশনা দিয়েছেন বলে শুনেছি। তাদের পক্ষ থেকে আন্তরিকতার অভাব আছে বলে মনে করি না।
প্রশ্ন: আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে দলটির প্রচার সম্পাদক অভিযোগ করেছেন নারায়ণগঞ্জের যেকোনো ঘটনায় আপনি নাকি শামীম ওসমানকে দোষারোপ করেন।
সেলিনা হায়াৎ আইভী: টেলিভিশনে হাছান মাহমুদ ভাইয়ের কথাটি আমি শুনেছি। বিষয়টি তিনি ঠিক বলেননি। তার প্রতি সম্মান রেখেই বলব, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন অধিবাসীদের যেকোনো বিপদে আমাকে কথা বলতেই হবে। সেই কথা যদি অপরাধীদের বিপক্ষে যায় তাহলে কিছু করার নেই। উনি এত একজন বড় মাপের নেতা। তার (হাছান মাহমুদ) জানা উচিত নারায়ণগঞ্জের এসব কাজের সঙ্গে কারা জড়িত। একটি উচ্চ পর্যায়ের সরকারি সংস্থা ত্বকী হত্যার অভিযোগপত্র প্রস্তুত করেছে বলে সংবাদ মাধ্যমে আমরা দেখেছি। এটাও কি আমার দোষ? নারায়ণগঞ্জের সবাই জানেন, আমার সঙ্গে শামীম ওসমানের রাজনৈতিক পদ-পদবী নিয়ে কোনো বিরোধ নেই। আমি দলের একজন সাধারণ কর্মী। তার সঙ্গে কোনো রাজনৈতিক প্রতিযোগিতা নেই।
প্রশ্ন: উত্তাল সময় পার করছে নারায়ণগঞ্জ। আপনার নিরাপত্তা নিয়ে কোনো উদ্বেগ আছে?
সেলিনা হায়াৎ আইভী: নিজের নিরাপত্তা নিয়ে কখনও শঙ্কিত নই। আমি জনগণের সেবায় কাজ করছি। আল্লাহ আমাকে নিরাপত্তা দেবেন। তবে আমি শঙ্কিত আমার পরিবার ও নেতা-কর্মীদের নিরাপত্তা নিয়ে।
প্রশ্ন: কেন?
সেলিনা হায়াৎ আইভী: আমার ছোট ভাই শহর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আলী রেজা উজ্জ্বল, আমার বোনের ছেলেসহ বেশ কয়েকজন নেতা-কর্মীকে জহিরুল ইসলাম ভূইয়া পারভেজ (ক্যাঙ্গারু পারভেজ) অপহরণ মামলায় গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। অথচ ঢাকার গুলশান থেকে পারভেজ গুম হওয়ার পর তার স্ত্রী মিডিয়াতে একাধিকবার দাবি করেছেন সাদা পোশাকের একটি সংস্থার লোকজন পারভেজকে নিয়ে গেছে। এখন জেল খাটতে হচ্ছে আমার আত্মীয়স্বজন ও নেতা-কর্মীদের।
প্রশ্ন:আপনার প্রতি এমন আচরণ কেন করবে?
সেলিনা হায়াৎ আইভী: কারণ আমি ত্বকী হত্যার বিচার চেয়েছি। নারায়ণগঞ্জের সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছি। এটাই আমার দোষ। সৌজন্যেঃ ঢাকা টাইমস

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close