ডাকাত সন্দেহে আটককৃত লিটন দেব কে নিয়ে ত্রিমূখি বক্তব্যে তুলপাড়

নবীগঞ্জের মুড়াউড়ায় দূর্ধর্ষ ডাকাতি ঘটনায় এলাকায় চুল ছেড়া বিশ্লেষন

নবীগঞ্জ প্রতিনিধিঃ নবীগঞ্জের দূর্গম পাহাড়ী অঞ্চল গজনাইপুর ইউনিয়নের মুড়াউরা গ্রামের দুবাই ও ওমান প্রবাসীর বাড়িতে গত ২৬শে এপ্রিল দিবাগত রাতে এক দূর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটে। ডাকাতরা প্রায় ৫০ভরি স্বর্ণালংকার, নগদ ১লক্ষ ৫হাজার টাকা, ১০টি দামী মোবাইল ফোন ও মালামাল সহ প্রায় ৩০লক্ষ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। ডাকাতির সাথে জড়িত থাকার সন্দেহে ২জনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে স্থানীয় জনতা। আটককৃতরা হলো মুড়াউরা গ্রামের রমাকান্তের পুত্র লিটন দেব (২৮) ও একই এলাকার দেবপাড়া গ্রামের ও বর্তমানে মুড়াউড়া গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল গফুরের পুত্র জয়নাল (৩৮)। -ডাকাতি চলাকালে ডাকাতদের হামলায় মহিলা সহ আহত হয়েছেন ৭জন। এরই প্রেক্ষিতে ঘটনার পরপরই ওই রাতেই জয়নালকে আটক করে জনতা। পর দিন সকাল অনুমান ৯টায় লিটন দেবকে আটক করা হয় তাদের বাড়ির পাশ্ববর্তী একটি স্কুলের পাশ থেকে। লিটন দেবকে গ্রেফতারে এলাকায় চলছে চুলছেড়া বিশ্লেসন অনেকেই বলছেন, যে বাড়িতে ডাকাতি সংঘটিত হয়েছে ওই বাড়িতে লিটন দেব দীর্ঘ ২/৩ বছর প্রাইমারী স্কুলের ছাত্র/ছাত্রীদের প্রাইভেট পড়া শোনা করিয়েছে। এক পর্যায়ে লিটনের সাথে ওই পরিবারের দ্বন্ধ দেখা দেয়। সংখ্যালঘু লিটনের পরিবারের লোকজনের দাবী সে স্থানীয় ভাবে রাজনীতির পাশাপাশি ক্ষুদে ব্যবসার সাথে জড়িত ছিল সে নির্দোষ। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকেরই দাবী যদি লিটন প্রকৃতপক্ষে দোষি হয়ে থাকে তাহলে তার কঠোর শাস্তি হোক। যদি সুষ্ট তদন্তে নিরপরাধ হিসাবে প্রমান হয় তাহলে তার নিঃর্শত মুক্তি দাবী করেন। এ ঘটনায় এলাকার পাড়া মহল্লায়, হাট বাজারে, চা ষ্টলে বিভিন্ন শ্রেনী পেশার লোকজনের মধ্যে চলছে ত্রী-মূখি বক্তব্য। মুড়াউড়া গ্রামের দূর্ধর্ষ ওই ডাকাতির ঘটনায় ৩জনের নাম উল্লেখ করে আরো ১৫/২০জনের নাম অজ্ঞাত রেখে বাড়ির গৃহ কর্তা আকলিছ মিয়া বাদী হয়ে গত ২৭ এপ্রিল নবীগঞ্জ থানায় একটি ডাকাতি মামলা রেকর্ড হয়।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close