সৌদির সাথে মিল রেখে মৌলভীবাজার সহ সারা দেশে শতশত মানুষের ঈদ উদযাপন

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

সুরমা টাইমস ডেস্কঃ সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে মৌলভীবাজার জেলার বিভিন্ন উপজেলার কয়েক গ্রামে ঈদ উদযাপন করা হচ্ছে। আজ বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৬টায় মৌলভীবাজার শহরের সার্কিট হাউস এলাকার একটি বাসার ছাদে ঈদুল আজহার একটি জামাত অনুষ্ঠিত হয়। ঈদ জামাতে ইমামতি করেন উজান্ডির পীর সাহেব আব্দুল মাওফিক চৌধুরী। মৌলভীবাজার সদরসহ বিভিন্ন উপজেলা থেকে আগত প্রায় শতাধিক মুসল্লি এ জামাতে অংশ নেয়। নামাজ শেষে তিনটি গরু ও দুইটি ছাগল কোরবানি দেওয়া হয়।
জেলার কুলাউড়া, বড়লেখা ও শ্রীমঙ্গল উপজেলার কয়েকটি গ্রামে হাজারো মানুষ ঈদ উদযাপন করছেন বলে জানা যায়। সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে প্রতিবছরই বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি জেলা ও এলাকায় ঈদ ও কোরবানি পালন করা হয়। এবারও এর ব্যতিক্রম হয়নি। মধ্যপ্রাচ্যের সঙ্গে মিল রেখে সকালে ঈদের নামাজ আদায় ও পশু কোরবানি করেছেন চট্টগ্রাম, চাঁদপুর, বরগুনা, ভোলা মৌলভীবাজারসহ বেশ কয়েকটি জেলার শত শত মানুষ রাষ্ট্রীয়ভাবে চাঁদ দেখার ভিত্তিতে কাল সারাদেশে ঈদুল আজহা উদযাপন হবে। আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে বিস্তারিত।
চট্টগ্রাম: সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে প্রতিবছরই বাংলাদেশের বেশ কিছু এলাকায় ঈদ উদযাপন করা হয়। অন্যান্য বছরের ন্যায় দক্ষিণ চট্টগ্রামের ৭টি উপজেলার প্রায় ৫০টি গ্রামে আজ উদযাপিত হচ্ছে পবিত্র ঈদুল আজহা।
বৃহস্পতিবার সকালে ভিন্ন ভিন্ন সময়ে ৫০টি গ্রামের প্রায় আড়াই হাজার পরিবার ঈদের নামাজ আদায় করে বলে জানা গেছে।পরে আল্লাহর নৈকট্য লাভের আশায় তারা পশু কোরবানি করতে শুরু করেন।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সাতকানিয়ার মির্জাখীল দরবারের অনুসারীরা তাদের আগের পীরের নির্দেশ অনুসারে প্রায় দুইশ বছর পূর্ব থেকে এ নিয়ম পালন করে আসছে।
এই দীর্ঘ সময় ধরে তারা সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্য, ইউরোপ ও আফ্রিকার বিভিন্ন দেশের সাথে মিল রেখে বাংলাদেশে একদিন আগে কোরবানি দিয়ে আসছে।রমজান ও ঈদুল ফিতরও একদিন আগে উদযাপন করে থাকে।
যেসব গ্রামে ঈদুল আজহা পালনের খবর পাওয়া গেছে, তাহলো- চন্দনাইশ উপজেলার কাঞ্চনগর, জোয়ারা, সাতবাড়িয়া, হারালা, আব্বাসপাড়া, খুনিপাড়া, সৈয়দাবাদ, দক্ষিণ কাঞ্চননগর, হাশিমপুর, কেশুয়া, জুনিঘোনা, মোহাম্মদপুর, বাইনজুড়ি, বরকল ও কানাইমাদারী, সাতকানিয়ার মীর্জাখীল, চরতী, সুইপুরা, খোয়াজপাড়া, মৈশামুড়া, বাজালিয়া, কাঞ্চনা, গাটিয়াডেঙ্গা, বাজালিয়া ও পুরানগড়, লোহাগাড়ার কলাউজান, আমিরাবাদ, বড়হাতিয়া, পুটিবিলা, উত্তর সুখছড়ি ও চুনতী, বাঁশখালীর জলদি, গুনাগরি, গন্ডামারা, মিঞ্জিরিতলা, ছনুয়া, সাধনপুর, কালীপুর, চাম্বল, শেখেরখীল, আনোয়ারার বরুমচড়া, বারখাইন, তৈলারদ্বীপ, পটিয়ার কালারপুল, হাঈদগাঁও, মল্লপাড়া, বাথুয়া, পৌরসদর ও বাহুলী এবং বোয়ালখালীর চরণদ্বীপ, বেঙ্গুরা ও সারোয়াতলী। এছাড়াও কক্সবাজার জেলার মহেশখালী, রাজাখালী, টেকনাফ ও হ্নীলাতে আরো শতাধিক পরিবার আজ ঈদুল আজহা পালন করবে বলে জানা গেছে।
চন্দনাইশ জাহগিরিয়া শাহছুফি মমতাজিয়া দরবারের মৌলানা মতি মিয়া মনচুর ঈদুল আজহা পালনের কথা নিশ্চিত করেছেন।
ভোলা: ভোলা জেলা সদর, বোরহানউদ্দিন, লালমোহন, চরফ্যাশন ও তজুমদ্দিন উপজেলার ১৪টি গ্রামের ১০ হাজার মানুষ বৃহস্পতিবার ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করেছেন। তারা সুরেশ্বর দরবার ও সাতকানিয়া পীরের অনুসারী। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে বোরহানউদ্দিন উপজেলার টবগী ইউনিয়নের মজনু মিয়ার বাড়ির দরজায় ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে প্রায় দুই হাজার মানুষ জামাতে শরীক হন। পরে পর্যায়ক্রমে চৌকিদার বাড়ি, পঞ্চায়েত বাড়িসহ ৫ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।
মৌলভীবাজার: সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে মৌলভীবাজারে বৃহস্পতিবার সকালে ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করেছেন শতাধিক মুসল্লী। সকাল সাড়ে ৬টায় মৌলভীবাজার শহরের সার্কিট হাউস এলাকার একটি বাসার ছাদে একটি জামাত অনুষ্ঠিত হয়। জামাতের ইমামতি করেন আলহাজ্ব আব্দুল মাওফিক চৌধুরী (পীর সাহেব উজান্ডি)। এতে মৌলভীবাজার সদরসহ বিভিন্ন উপজেলা থেকে আসা প্রায় শতাধিক মুসল্লী জামাতে অংশ নেন। জামাতে নারী মুসল্লীরাও অংশ নেন। নামাজ শেষে তিনটি গরু ও দুটি ছাগল কোরবানি দেওয়া হয়। এদিকে, জেলার কুলাউড়া, বড়লেখা ও শ্রীমঙ্গলেও সহস্রাধিক মুসল্লী সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে ঈদ উদযাপনের খবর পাওয়া গেছে।
চাঁদপুর: চাঁদপুরের বিভিন্ন গ্রামে আজ ঈদ উদযাপন হচ্ছে। হাজীগঞ্জ উপজেলার বড়কুল পশ্চিম ইউনিয়নের সাদ্রা হামিদিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা আবু বকর মুঠো ফোনে জানান, একই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মরহুম মাওলানা আবু ইছহাক ইসলামের এসব ধর্মীয় রীতিনীতি প্রচলন শুরু করেন। মাওলানা ইছহাকের মৃত্যুর পর থেকে তার ৬ ছেলে এ মতবাদের প্রচার চালিয়ে আসছেন। এদের মধ্যে তার বড় ছেলে আবু যোফার মোহাম্মদ আবদুল হাই সাদ্রাভী অন্যতম।
তবে দেশের মুন্সীগঞ্জ, শরিষতপুর, বরিশাল, মাগুরা জেলার বেশ কিছু এলাকার গ্রামসমূহসহ চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ, ফরিদগঞ্জ, মতলব দক্ষিণ ও কচুয়া উপজেলার ৪০টি গ্রামে প্রায় ৮৬ বছর ধরে এভাবে রোজা, ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহা উদযাপিত হয়ে আসছে।
তবে যেসব জেলার মধ্যে আজ ঈদ পালন হবে- হাজীগঞ্জ উপজেলার সাদ্রা, সমেশপুর, অলিপুর, বলাখাল, মনিহার, বেলঁচো, জাঁকনি, প্রতাপপুর, গোবিন্দপুর, দক্ষিণ বলাখাল। এছাড়া ফরিদগঞ্জ উপজেলার-সেনাগাঁও, বাশারা উভারামপুর, উটতলী, মুন্সিরহাট, মূলপাড়া, বদরপুর, পাইকপাড়া, সুরঙ্গচাইল, বালিথুবা, কাইতাড়া, নুরপুর, শাচনমেঘ, ষোল্লা, হাঁসা ও চরদুখিয়া। মতলব দক্ষিণ উপজেলার দশআনী, মোহনপুর, পাঁচআনী ও কচুয়া উপজেলার উজানি গ্রাম রয়েছে।
সাদ্রা দরবার শরীফের গদিশীন পীর মাওলানা আবু যোফার আবদুল হাই জানান, সৌদি আরবের সঙ্গে বাংলাদেশের সময়ের ব্যবধান মাত্র ৬ ঘণ্টা। ৬ ঘণ্টা ব্যবধানের জন্য রোজা ও ঈদ পালনে বাংলাদেশে একদিন/দুইদিন ব্যবধান হতে পারে না।
তিনি আরও বলেন, বৃহস্পতিবার সকাল ৯টায় সাদ্রা হামিদিয়া দাখিল মাদ্রাসা মাঠে ঈদুল আজহার প্রধান জামায়াত অনুষ্ঠিত হবে।
বরগুনা: বরগুনার নয়টি গ্রামে আজ বৃহস্পতিবার ঈদুল আজহা উদযাপিত হচ্ছে।সকাল ৮ টায় বরগুনার বেতাগী উপজেলার বকুলতলা গ্রামের কাসেম চেয়ারম্যান বাড়ী মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে। এছাড়াও বরগুনা সদর উপজেলার পাজরাভাঙ্গা, কালিরতবক, ধুপতি, গৌরীচন্না, আমতলী উপজেলার কুকুয়া, ঘোচখালী এবং পাথরঘাটা উপজেলার শিংড়াবুনিয়া ও কাকচিড়া গ্রামের কিছু কিছু এলাকায় ঈদুল আজহা উদযাপিত হয়েছে।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close