বিচারহীনতার অপসংস্কৃতির জন্যই বার বার হত্যাকারীরা পার পেয়ে যায় – রতন দেব

IMG_2922 copy‘দিকে দিকে ধিকি ধিকি জ্বলে অগ্নিলাল মশাল, প্রতিরোধে প্রতিবাদে রাজপথ হোক উত্তাল’- এই শ্লোগানকে সামনে রেখে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী সিলেট জেলা সংসদ গতকাল ৬ই মার্চ বিকাল ৪টায় ‘যশোর হত্যাকান্ড দিবস’ উপলক্ষ্যে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করে। উচীদী সিলেট জেলার সভাপতি এ কে শেরামের সভাপতিত্বে ও সহ সাধারণ সম্পাদক শাহ নেওয়াজ সোহাগের পরিচালনায় সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, উদীচী কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি ব্যারিস্টার আরশ আলী। তিনি বলেন, ১৯৯৯ সালের ৬ই মার্চ যশোর টাউন হলে উদীচীর দ্বাদশ জাতীয় সম্মেলনে এদেশীয় মৌলবাদী জঙ্গীগোষ্ঠী ও আন্তর্জাতিক সাম্রাজ্যবাদী চক্র বোমা হামলা চালিয়ে ১০জন প্রগতিশীল শিল্পী হত্যা করে উচীদীর অগ্রযাত্রাকে চিরতরে নির্মূল করতে চেয়েছিল। সেই নরঘাতকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, যে শিল্পীদের শরীরে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা প্রবাহিত, যে শিল্পী শিল্পের মাধ্যমে এই ঘুনে ধরা সমাজটাকে পরিবর্তন করতে চায়, সেই শিল্পীদের কেউ কোন দিন ধ্বংশ করতে পারবে না। বরং দিনে দিনে সেই পরাজিত শত্রুদের বাংলার মাটিতে কবর রচনা করে উদীচী সিলেট জেলার শিল্পী গোষ্ঠী একটি নতুন সূর্যদয় ঘটিয়ে সমাজের সকল অন্ধকারকে আলোকিত করবে।
উদীচী সিলেট জেলার সাধারণ সম্পাদক রতন দেব বলেন, বিচারহীনতার অপসংস্কৃতির জন্যই বার বার হত্যাকারীরা পার পেয়ে যায়। যদি সেই দিন যশোর হত্যাকারীদের বিচারের আওতায় এনে ফাঁসির কাষ্টে ঝুলিয়ে বিচারের রায় কার্যকর করা হত, তা হলে আজ ১৭ বছর পরে এসেও বর্ষবরণে নারীদের লাঞ্চিত হতে দেখতে হত না। সিপিবির সমাবেশে, একুশে আগস্ট, রমনার বটমূলে ও আওয়ামীলীগের সমাবেশে বোমা হামলা, মুক্তমনা লেখক ব্লগারদের এভাবে নির্মম হত্যার শিকার হতে হত না। তাই সরকারকে যশোর হত্যাকারীদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে বিচারের আওয়াতায় এনে শাস্তির দাবী করেন।
এসময় আরো বক্তব্য রাখেন, উদীচী সিলেট জেলা উপদেষ্টা বাদল কর, সিপিবির সিলেট জেলার সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন সুমন, উদীচী সিলেট জেলার সহ সভাপতি মনির হেলাল, দপ্তর সম্পাদক ধ্রুব গৌতম, ছাত্র ইউনিয়ণ সাধারণ সম্পাদক দিপংকর দাস গুপ্ত, জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশন সিলেট জেলার সাধারণ সম্পাদক কাজী আলফাজ হোসেন, যুব ইউনিয়ন সভাপতি খাইরুল হাসান, কার্যকরি সদস্য আরজু আমির, সিপিবি নেতা ডা. বীরেন চন্দ্র দেব, গণজাগরণ মঞ্চর মুখপাত্র দেবাশীষ দেবু, ছাত্র ইউনিয়ন সিলেট জেলার সভাপতি সপ্তর্ষী দাস, উদীচী সদস্য মো. ইয়াকুব আলী, সন্দ্বীপ দেব, ফাহমিদা এলাহী বৃষ্টি প্রমুখ।
সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পনের মাধ্যমে ১৯৯৯ সালের ৬ই মার্চে যশোরে বোমা হামলায় নিহত ও শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close