শিক্ষা সেবা চালু থাকলে বিশ্ব নেতৃত্বের সৃষ্টি হবে

বিশ্বনাথ ইসলামী ছাত্র সংস্থা’র বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে ইয়াহইয়া চৌধুরী

photo-0বিশ্বনাথ প্রতিনিধিঃ সিলেট-২ আসনের সংসদ সদস্য, বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ইয়াহইয়া চৌধুরী এহিয়া বলেছেন, বিশ্বনাথের শিক্ষা ব্যবন্থাকে এগিয়ে নিতে যে সকল সামাজিক সংগঠন কাজ করছে তাদের মধ্য বিশ্বনাথ ইসলামী ছাত্র সংস্থা অগ্রগামী। দীর্ঘ ২৩ বছরের পথ চলায় সংগঠনটি সৃষ্টি করেছে অসংখ্য মেধাবী। যারা জাতির জন্য বয়ে আনছে গৌরব। শিক্ষা প্রসারের এ সেবা চালু থাকলে এখান থেকে বিশ্ব নেতৃত্ব সৃষ্টি হবে। গতকাল শনিবার বিকেলে উপজেলা পরিষদ হলে বিশ্বনাথ ইসলামী ছাত্র সংস্থার ২৩তম বর্ষপূর্তি ও ২০তম বৃত্তি প্রদান উপলক্ষে আয়োজিত সদস্য সমাবেশ ও বৃত্তি-সনদ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এর আগে উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মাওলানা মুহাঃ লুৎফুর রহমানের।
সংস্থার সভাপতি আলতাফুর রহমানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আহসান মাহমুদ শিপন ও শফিক আহমদ পিয়ারের যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচকের বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ জমিয়তুল মোদার্রেছীন এর যুগ্ম-মহাসচিব অধ্যক্ষ মুফতি এ.কে.এম মনোওর আলী। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- বিশ্বনাথ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আহমেদ নূরউদ্দিন, সদর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ছয়ফুল হক, সংস্থার প্রতিষ্টাতা সদস্য আবুল বশর মোঃ ফারুক, সমাজসেবী ও শিক্ষানুরাগী ফয়জুল ইসলাম, সাবেক সভাপতি মাওলানা মাহমুদুর রহমান, মাওলানা হাবিবুর রহমান, আল মুছিম স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মো. মানিক মিয়া, অলংকারী পৌদনাপুর দাখির মাদরাসার সুপার মাওলানা আলী হোসেন জায়েদ।
হাফিজ ইব্রাহিম আলীর কোরআন তিলাওয়াত ও মাসুক আহমদ নাঈমের নাতে রাসুল (স) পরিবেশনের মাধ্যম্যে সূচিত অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সংস্থার সহ সাধারণ সম্পাদক আলী আনহার শাহান। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, দৌলতপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন, সংস্থার সাবেক সভাপতি ফরিদউদ্দিন আহমদ, জামালউদ্দিন, সাইফুল ইসলাম বেগ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ফয়জুল ইসলাম ফয়েজ, সুবাতাস সম্পাদক এনামুল হক মামুন, দৈনিক আমাদের অর্থনীতি বিশ্বনাথ প্রতিনিধি এটিএম আব্বাস, বিশ্বনাথ ডেফোডিল এসোসিয়েশনের সভাপতি মাহবুবুর রহমান সাহেদ, মাওলানা আজিজুর রহমান, মোঃ আজিজুর রহমান, মোহাম্মদ আবুল কাশেম, সাইদুল ইসলাম, কামরুল ইসলাম, আবু ছালেহ, আজাদুর রহমান, শফিকুল ইসলাম বাবুল প্রমুখ। অনুষ্ঠানে উপজেলার ১২২টি প্রতিষ্ঠানের পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী ৮৩৪ শিক্ষার্থীর মধ্যে কৃতকার্য ১২৯ জন শিক্ষার্থীদের মধ্যে বৃক্তি ও সনদ প্রদান করা হয়।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close