তোলারাম কলেজে ছাত্রলীগের হামলায় আহত ২০

attacked by chhatroleageসুরমা টাইমস ডেস্কঃ নারায়ণগঞ্জ সরকারি তোলারাম কলেজে ভর্তিবাণিজ্য ও ছাত্রলীগের দখলদারিত্বের বিরুদ্ধে স্মারকলিপি জমা দিতে গিয়ে হামলা ও পিটুনির শিকার হয়েছেন নারায়ণগঞ্জ প্রগতিশীল ছাত্রজোটের নারী কর্মীসহ অন্তত ২০ জন। বুধবার সকাল সাড়ে ১১টায় এ ঘটনা ঘটে।
আহতদের শহরের খানপুরে নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের দাবি, ছাত্রলীগ এ হামলা চালিয়েছে। তবে ছাত্রলীগ বলছে, ঘটনার সঙ্গে তারা সম্পৃক্ত না।
আহতরা হলেন— ছাত্র ইউনিয়নের নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি মৈত্রী ঘোষ, প্রগতিশীল ছাত্রজোটের জেলার আহ্বায়ক ও সামজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের জেলার সভাপতি সজল বাড়ৈ, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের নারায়ণগঞ্জ জেলা সভাপতি ও তোলারাম কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্স শেষ বর্ষের ছাত্র জাহিদ সুজন, জোটের সদস্য সেতু, সদস্য ও তোলারাম কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র রাজু আহমেদ, শাওন, লিজা আক্তার, ফারজানা, সোহেলী, ফাতেমা, রিয়া আক্তার, খাদিজা আক্তার অন্তরা, লিজা আক্তার, মেঘলা প্রমুখ।
বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি মৈত্রী ঘোষ বলেন, ‘সকালে পূর্বনির্ধারিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে সরকারি তোলারাম কলেজে স্মারকলিপি জমা দিতে গেলে কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি রিয়াদসহ আরও কয়েকজন জোটের মিছিলের পিছন থেকে কাঠ, বাঁশ, অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। হামলার সময় পুলিশ গাড়ি নিয়ে দাঁড়ানো থাকলেও ছাত্রলীগের কর্মীদের বাধা না দিয়ে উল্টো জোটের কর্মীদের মারতে যায়।’
তবে তোলারাম কলেজ ছাত্রলীগ শাখার সভাপতি হাবিবুর রহমান রিয়াদ মুঠোফোনে বলেন, ‘জামায়াত নেতা আলী আহসান মুজাহিদের ফাঁসির রায়কে স্বাগত জানিয়ে ও জামায়াতের হরতালের বিরুদ্ধে সকালে ছাত্রলীগ মিছিল বের করে। ওই সময়ে বহিরাগত কিছু লোকজন কলেজে আসে যখন অভিভাবক প্রতিনিধি সভা ও পরীক্ষার কারণে কলেজের মূল ফটক বন্ধ ছিল। কিন্তু উচ্ছৃঙ্খল লোকজন কলেজের মূল গেট ধাক্কাধাক্কি করলে ভীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। তখন বহিরাগতদের কলেজ থেকে সরিয়ে দেয় সাধারণ লোকজন।’
তিনি বলেন, ‘ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে হামলা করার অভিযোগ আদৌ সত্য না। বরং মিডিয়া কভারেজের জন্যই এ ধরনের দোষারোপ করা হচ্ছে।’
ফতুল্লা মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) গোলাম মোস্তফা জানান, কলেজের সামনে ছাত্রলীগ হরতালবিরোধী মিছিল বের করে আর একই সময়ে বাম দলের কিছু লোকজনও মিছিল বের করে। তখন দুই পক্ষের মধ্যে ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close