মহানগর হকার্স শেড মার্কেট উচ্ছেদ, বিপাকে ব্যবসায়ীরা

Zindabazar Hawkers Shadeসুরমা টাইমস ডেস্কঃ চারদলীয় জোট সরকারের সময় সিলেট মহানগর হকার্স শেড মার্কেট তৈরি করে দিয়েছিলেন সাবেক অর্থমন্ত্রী মরহুম এম সাইফুর রহমান। এই মার্কেটি বৃহস্পতিবার উচ্ছেদ করে দিলো জেলা প্রশাসন। এতে ব্যবসায়ীরা চরম বিপাকে পড়ছেন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জেলা নেজারত ডেপুটি কালেক্টরেট মোবশ্বির হাসানের নেতৃত্বে এই উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়।
ব্যবসায়ীদের দাবী, প্রশাসন কোন প্রকার নোটিশ ছাড়াই বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এই উচ্ছেদ অভিযান চালায়। তবে, উচ্ছেদ অবিযানে নেতৃত্ব দেয়া মোবশ্বির হাসান আলাপকালে জানান, এই জায়গা জেলা প্রশাসনের । অবৈধভাবে এটা দখল রয়েছে। নোটিশ দেয়ার কোন আইনী বাধ্যবাধকতা নেই। তবুও মানবিক দিক বিবেচনা করে গত সোমবার তিনি নিজে এসে ব্যবসায়ীদের এখান থেকে সরে যেতে তিনদিনের সময় দেন কিন্তু তারা সরে না যাওয়াতে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এই অভিযান শুরু হয়।
এদিকে মার্কেটের ব্যবসায়ী মাহবুবুর রহমান জানান, বিগত চারদলীয় জোটের সময় এই মার্কেট করে দেন সাবেক অর্থমন্ত্রী মরহুম এম সাইফুর রহমান। এতদিন কোন সমস্যা ছিলো না। হঠাৎ করে এমনটা করার কারণ তারা বুঝতে পারছেন না। এতে তাদের পথে বসার অবস্থা হয়েছে। তারা তাদের এতদিনের ব্যবসা কিভাবে গুটিয়ে নিবেন তা বুঝতে পারছেন না। তাদের এই ক্ষতি কেনো করা হলো এই জিজ্ঞাসা তার। তারা এ নিয়ে আন্দোলনে যাওয়ার কথাও ভাবছেন বলে জানান অন্য এক ব্যবসায়ী।
এদিকে সিলেটের একমাত্র পত্রিকা, সাময়িকী ও বইয়ের বাজার ‘হকার্স শেড’ রক্ষার দাবি জানিয়েছেন মহানগর সংবাদপত্র হকার্স শেড এর ব্যবসায়ীরা । বুধবার শেড-এর সামনে এক সমাবেশ করেন। সংবাদপত্র হকার্স সমিতির সভাপতি শফিক আহমদের সভাপতিত্বে ও জসিম উদ্দীনের পরিচালনায় এ সময় উপস্থিত ছিলেন, আ: ছাত্তার, আব্দুল্লাহ, নুরু গাজী. হাসু মিয়া, বেলাল আহমদ, বাবুভাই, শাহ মিয়া প্রমুখ। সমাবেশে আশেপাশের শতাধিক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী সহমর্মিতা প্রকাশ করেন।
এ সময় ব্যবসায়ীরা বলেন, পত্রিকা বিক্রির জন্য ঢাকা, চট্রগ্রাম, রাজশাহীসহ দেশের বড় বড় শহরে রয়েছে হকার্স শেড। সিলেটেও সাবেক অর্থমন্ত্রী এম.সাইফুর রহমানের ও তৎকালিন জেলা প্রশাসকের সহযোগিতায় গড়ে উঠেছিল জিন্দাবাজারের সবুজ বিপনীর অপর প্রান্তে মহানগর হকার্স শেড। কিন্তু কিছু অসাধু চক্র ষড়যন্ত মূলক ভাবে আমাদের কে বার বার উচ্ছেদ করার চেষ্টা করছে। তারা শেড রক্ষার জন্য জনপ্রতিনিধি, সচেতন মহল ও প্রশাসনের ঊধ্বতন কর্মকর্তাদের প্রতি আকুল আবেদন জানান।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close