যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি হত্যায় কৃষ্ণাঙ্গ যুবকের ৫৫ বছরের জেল

Killer Mendez and Victim Belalনিউইয়র্ক থেকে এনা: যুক্তরাষ্ট্রের কানেকটিকাট স্টেটের হার্ডফোর্টে বহুল আলোচিত বাংলাদেশি, বাংলাদেশ ইয়েলো সোসাইটির সাবেক সভাপতি এবং যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ নেতা লুৎফর রহমান তরফদার বেলাল হত্যা মামলায় কেজলিন মেন্ডেজ নামে এক কৃষ্ণাঙ্গ যুবককে ৫৫ বছরের কারাদ- দিয়েছে আদালত। স্থানীয় সময় মঙ্গলবার সকালে কানেকটিকাটের হার্ডফোর্ড সুপরিয়র কোর্টের বিচারক এডওয়ার্ড জে. মুলারকি এ দ-াদেশ দেন। ২০১২ সালের ২৫ আগস্ট হার্টফোর্টে ওই কৃষ্ণাঙ্গ যুবক বাংলাদেশি মালিকানাধীন একটি গ্রোসারিতে ঢুকে লুটপাট চালায় এবং সেখানে কর্মরত বেলালকে গুলি করে হত্যা করে।
হার্ডফোর্ড পুলিশ সার্ভিলেন্স ক্যামেরায় ধারণ করা ছবি দেখে খুনীকে সনাক্ত এবং দুদিন পরে গ্রেপ্তার করে। ঘটনার ৭১৮ দিন পর চাঞ্চল্যকর মঙ্গলবার এই হত্যা মামলার রায় প্রদান করা হয়। আদালত রায়ে কেজলিন মেন্ডেজকে খুনী সাব্যস্ত করে ৫৫ বছরের কারাদ- দেয়।
রায় প্রদানের সময় নিহত লুৎফর তরফদার বেলালের স্ত্রী শামীমা তরফদার আদালতে উপস্থিত ছিলেন। রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন তিনি। রায়ের প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন, ওই খুনি শুধু আমার স্বামীকেই খুন করেনি, একই সঙ্গে সে পুরো পরিবারকেই খুন করেছে। এর আগে বেলাল তরফদারের ছোট মেয়ে নাজমুন তরফদার আদালতে বলেন, আমার বাবা খুব ভালো মানুষ ছিলেন। কখনই তিনি আমাদের দুঃখ দেননি। সবসময় বাবা আমাদের খুশি রাখতেন আর খুব আদর করতেন। আমরা আজ বাবার ¯েœহ-ভালবাসা ও অধিকার থেকে বঞ্চিত।
লুৎফর তরফদার বেলালের স্ত্রী শামীমা তরফদার বর্তমানে তিন কন্যাসহ কানেকটিকাটের ম্যানচেস্টার শহরে বসবাস করছেন। তাদের গ্রামের বাড়ি মৌলভীবাজার জেলায়। কানেকটিকাটে বসবাসের আগে বেলাল তরফদার দীর্ঘদিন নিউইয়র্কে ছিলেন। সেখানে অবস্থানকালে তিনি যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় ছিলেন।

Pin It on Pinterest

Share This

By continuing to use the site, you agree to the use of cookies. more information

The cookie settings on this website are set to "allow cookies" to give you the best browsing experience possible. If you continue to use this website without changing your cookie settings or you click "Accept" below then you are consenting to this.

Close